আইডিইবি’র জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (আইডিইবি) ২২তম জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে তিন দিনব্যাপী এই সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। সম্মেলন উদ্বোধন করতে শনিবার সকাল ১০টার কিছু পরই অনুষ্ঠানস্থলে যান প্রধানমন্ত্রী। এরপর সকাল সোয়া ১১টার দিকে তিনি সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানায় আইডিইবির তৈরি ‘মি. টিভেট’ নামের একটি রোবট। এ সময় রোবটটির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী কথা বলেন।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বিশ্বমানের ‘টেকনিক্যাল ভোকেশনাল এডুকেশন ট্রেইনিং’ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে শনিবার এই সম্মেলন শুরু হয়। তিন দিনব্যাপী এই সম্মেলন শেষ হবে ১৭ সেপ্টেম্বর।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ, রাজনীতি, সমাজসেবা, কারিগরি শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে অবদান রাখার জন্য আইডিবির সদস্য তিনজন বিশিষ্ট প্রকৌশলীকে স্বর্ণপদক দেয়া হবে।

মুক্তিযুদ্ধ, রাজনীতি ও সমাজসেবায় পদক পাবেন ১৯৭০ সালে নির্বাচিত এমএনএ মরহুম সফর আলী মিয়া। সাংগঠনের ও কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য আইডিইবি’র সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল কাদের সরকার এবং সংস্কৃতি অঙ্গনে অবদানের জন্য বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক সৈয়দ উদ্দিন আহমেদ ছটকুকে স্বর্ণপদক দেয়া হবে।

তিন দিনের এই অনুষ্ঠানে দুটি আন্তর্জাতিক সেমিনারসহ ১৫টি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। এতে বিশ্বের সাতটি দেশের ১৫ বিদেশিসহ ছয় হাজারেরও বেশি আমন্ত্রিত অতিথি ও সদস্য প্রকৌশলী অংশ নেবেন। এছাড়াও ইঞ্জিনিয়ারিং ইনোভেশন এক্সপোতে প্রদর্শন করা হবে বিভিন্ন আবিষ্কারের ৫২টি বিষয়।

সম্মেলনে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম ও ২০৪১ সালের উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বাস্তবায়ন এবং ৪র্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার করণীয় বিষয়সহ সদস্য প্রকৌশলীদের পেশাগত বিষয়ে আলোচনা ও সুপারিশ প্রণীত হবে।