কিশোরগঞ্জের পথে আশরাফের মরদেহ

শেষবারের মতো নিজ জেলা কিশোরগঞ্জের যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। এমপি হিসেবে শপথ নেওয়ার জন্য সময় চেয়ে জাতীয় সংসদের স্পিকারকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। দেশে ফিরে নিজ এলাকায়ও যাওয়ার কথা ছিল তার।  সেই সংসদ ভবনের প্রাঙ্গণে তিনি এলেন তবে কফিনবন্দি হয়ে। এবার বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টারে করে যাচ্ছে সৈয়দ আশরাফের নিথর দেহ।

এর আগে জাতীয় সংসদ ভবনে নামাজে জানাজে শেষে প্রিয় নেতাকে শ্রদ্ধা জানান সর্বস্তরের মানুষ।

গত ৩ জানুয়ারি চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে মৃত্যুবরণ বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ।  ৫ জানুয়ারি সন্ধ্যায় বাংলাদেশ বিমানের মেঘদূতে করে আনা হয় সৈয়দ আশরাফের মরদেহ।

আজ সকাল সাড়ে দশটার পরে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় মরহুমের প্রথম নামাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে নেয়া হচ্ছে কিশোরগঞ্জে। কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ময়দানে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। দলের পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও উপ দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া রয়েছেন। এছাড়াও সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের তিন ভাইও রয়েছেন।

এরপর সৈয়দ আশরাফের মরদেহ নেয়া হবে ময়মনসিংহে, সেখানে তৃতীয় দফা জানাজা শেষে বাদ আছর বনানী কবরস্থানে দাফন করার কথা রয়েছে।