কিশোর-কিশোরীরা ছাড়ছে ফেসবুক

ফেসবুক ছেড়ে অন্য সামাজিক মাধ্যমগুলোর দিকে ঝুঁকছে কিশোর-কিশোরীরা। ফলে কমছে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের সংখ্যা।  সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা সংস্থা পিউ রিসার্চ সেন্টারের এক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণা অনুযায়ী ফেসবুক নয়, এখন স্নেপচ্যাট, ইনস্টাগ্রামের মতো যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে কিশোর-কিশোরীরা বেশি সময় কাটাচ্ছে। অনলাইনের কোনো প্ল্যাটফর্মটি বেশি ব্যবহার করা হয়, এমন প্রশ্নে মাত্র ১০ ভাগ কিশোর-কিশোরী উত্তর দেয় যে তারা ফেসবুক ব্যবহার করে। এ ছাড়া ৩৫ ভাগ কিশোর-কিশোরী স্ন্যাপচ্যাট, ৩২ ভাগ ইউটিউব ও ১৫ ভাগ ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করার কথা জানায়।

গবেষণাটিতে বর্ণ, সম্প্রদায়, লিঙ্গ ও আর্থিক স্বচ্ছলতার ভিত্তিতেও জরিপ করা হয়।

আর্থিক স্বচ্ছলতার ভিত্তিতে : তবে ফেসবুক ব্যবহারকারী কিশোর-কিশোরীদের সংখ্যা কমলেও, যাদের আর্থিক স্বচ্ছলতা কম তাদের মধ্যে ফেসবুক ব্যবহার করার প্রবণতা বেশি দেখা যায়; যাদের ৭০ ভাগের বার্ষিক পারিবারিক আয় ৩০ হাজার ডলার।

লিঙ্গের ভিত্তিতে :

গবেষণা অনুযায়ী, মেয়েরা স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহার করতে সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে। অন্যদিকে, ছেলেরা পছন্দ করে ইউটিউব।

 বর্ণ বা গায়ের রং :

এ ছাড়া বর্ণের ভিত্তিতেও সংস্থাটি জরিপ করে।তাদের মতে, কালো বর্ণের ছেলেমেয়েরা ফেসবুক ও ফর্সা বর্ণের ছেলেমেয়েরা স্ন্যাপচ্যাট বেশি ব্যবহার করতে পছন্দ করে।

২০১৫ সালে এই সংস্থাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের মধ্যে আরেকটি গবেষণা করেছিল। যাতে বেরিয়ে আসে ৭১ ভাগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৫১ ভাগ কিশোর-কিশোরী ফেসবুক ব্যবহার করে। এদের সবার বয়স ছিল ১৩ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের মধ্যে ইউটিউব ব্যবহার করে ৮৫ ভাগ, ইনস্টাগ্রাম ৭২ ভাগ, স্ন্যাপচ্যাট ৬৯ ভাগ কিশোর-কিশোরী। এদের তুলনায় ফেসবুক ব্যবহারকারীদের সংখ্যা এ বছর খুবই নগণ্য।

অথচ, আগের গবেষণায় দেখা গিয়েছিল, ইনস্টাগ্রাম মাত্র ৫২ ভাগ, স্ন্যাপচ্যাট মাত্র ৪১ ভাগ কিশোর-কিশোরী ব্যবহার করে। তবে, ওই বছর জরিপে ইউটিউবকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

কিশোর-কিশোরীদের ফেসবুক ছেড়ে দেওয়া নিয়ে গবেষণা এটাই প্রথমবার নয়। গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেই করা আরেক গবেষণায় দেখা যায়, ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের মধ্যে ফেসবুক ব্যবহারের পরিমাণ, নয় দশমিক নয় ভাগ কমে গেছে। একই বছরের নভেম্বর মাসে গবেষণায় এই পরিমাণ আরো তিনগুণ কমে গিয়েছিল বলে ধারণা করা হয়।

কোম্পানিটি ধারণা করেছিল যে, এই বছর ফেসবুক আমেরিকার ২০ লাখ এক হাজার ব্যবহারকারীকে হারাবে। আর এদের সবার বয়সই ২৫ বছরের নিচে।

পিউয়ের দেওয়া তথ্য মতে, ৯৫ ভাগ কিশোর-কিশোরী জানায় তাদের হাতে একটি স্মার্টফোন রয়েছে। তবে, ব্যবহারকারীদের সংখ্যা কমে গেলেও প্রতি মাসে দুই কোটি দুই লাখ ব্যবহারকারী নিয়ে এখনো পর্যন্ত ফেসবুকই বিশ্বের সবচাইতে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।