খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে চুরি, কর্মচারী আটক

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) ভাস্কর্য ডিসিপ্লিনে আলমারি ভেঙে ৮৫ হাজার টাকা চুরির অভিযোগ উঠেছে।  বৃহস্পতিবার অফিস ছেড়ে সকলে চলে গেলে এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার এ ঘটনা জানাজানি হলে ডিসিপ্লিনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীকে হরিণটানা থানায় ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করায় ঘটনাটির চাঞ্জল্যের সৃষ্টি হয়। তালা ভেঙে টাকা চুরির সাথে জড়িত সন্দেহে খুবির সৈকত নামে একজন কর্মচারীকে আটক করেছে পুলিশ। একাধিক সূত্র জানান, শুক্রবার সকালে একজন কর্মকর্তা জরুরি প্রয়োজনে অফিসে এসে ভাস্কর্য ডিসিপ্লিনের আলমারি ভাঙা দেখে ডিনকে জানান। তাৎক্ষণিকভাবে ডিসিপ্লিন প্রধান এসে হরিণটানা থানায় অভিযোগ করেন। পরে পর্যায়ক্রমে ডিসিপ্লিনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীকে থানায় ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। এতে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে এই ডিসিপ্লিনের কর্মকর্তা সৈকতকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। পরে আলমারির তালা ভেঙে ৮৫ হাজার টাকা আত্মসাতের কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে বলে সূত্র জানায়।

এ বিষয়ে জানতে ভাস্কর্য ডিসিপ্লিন প্রধান (ইনচার্জ) সহকারী অধ্যাপক জাহিদা আক্তারের সাথে যোগাযোগ করলে তার ব্যবহৃত নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সহকারী অধ্যাপক মো. শেখ সাদী ভূইয়া বলেন, চুরির সাথে সম্পৃক্ত সন্দেহে পুলিশ সৈকত মাহমুদ নামে একজনকে থানায় ধরে নিয়ে গেছে বলে শুনেছি। থানায় খোঁজ নিতে পরামর্শ দেন তিনি।

হরিণটানা থানার ওসি মো. নাসিম খান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তারা লিখিত কোন অভিযোগও করেনি। এজন্য তাদের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে সৈকত মাহমুদ নামে একজনকে আটক করে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।