গরুর হাট নিয়ে কেসিসির বিশেষ সভায় সিদ্ধান্ত জোড়াগেট কোরবানির পশুর হাটে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা থাকবে

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ২৯তম বিশেষ সভা বুধবার বেলা ১১টায় নগর ভবনের শহীদ আলতাফ মিলনায়তনে সিটি মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কেসিসি’র ব্যবস্থাপনায় নগরীর জোড়াগেটে আসন্ন কোরবানীর পশুর হাট সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও উম্মুক্ত রাস্তায় যত্রতত্র পশু কোবানী রোধে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্তগুলি হচ্ছে, কোরবানির পশুরহাটে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ, সিসি ক্যামেরা স্থাপন, জাল টাকা সনাক্তকরণের ব্যবস্থা নেয়া, হাটে আগত ক্রেতা-বিক্রেতাসহ জনগণ এবং পশুর জন্য প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা, হাটে পরিচ্ছন্ন পরিবেশ নিশ্চিত করা ও হাট এলাকায় ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদার ইত্যাদি। এছাড়া কোরবানির পশুর বর্জ্য দ্রুত অপসারণসহ নগরীর পরিবেশ সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
সভায় কাউন্সিলর শামসুজ্জামান মিয়া স্বপনকে আহবায়ক করে কোরবানির পশুর হাট পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। সভায় জানানো হয়, নগরীর ৩১টি ওয়ার্ডে ১৭২টি স্থানকে পশু কোরবানির নির্ধারিত স্থান হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়। পাশাপাশি ওয়ার্ডে কাউন্সিলরের নেতৃত্বে ওয়ার্ডভিত্তিক স্থানীয় কমিটি গঠনেরও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
সভাপতির বক্তৃতায় সিটি মেয়র বলেন, জোড়াগেট পশুর হাটে এবারও ক্রেতা-বিক্রেতের জন্য সর্বোচ্চ নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করা হবে। পাশাপাশি সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করে অতীতের সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে সংশ্লিষ্ট সকলকে স্বীয় দায়িত্ব দক্ষতা ও আন্তরিকতার সাথে পালন করতে হবে।
কেসিসি’র প্যানেল মেয়র মোঃ আনিসুর রহমান বিশ্বাস, শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, কাউন্সিলর মোঃ হাফিজুর রহমান মনি, এস এম খুরশিদ আহম্মেদ টোনা, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) পলাশ কান্তি বালা, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মোঃ আব্দুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ নাজমুল ইসলাম, জেলা প্রশাসনের প্রতিনিধি নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জান্নাতুল আফরোজ স্বর্ণা, র‌্যাব-৬ এর প্রতিনিধি এএসপি সোহেল পারভেজ ও কেএমপি’র প্রতিনিধি সিআই বিএম শাহজাহান সভায় মতামত তুলে ধরেন। প্যানেল মেয়র রুমা খাতুনসহ কাউন্সিলর, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।