জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন আজ

আজ শনিবার খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ৩১ টি ওয়ার্ড, জেলার নয়টি উপজেলা এবং দু’টি পৌরসভায় ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ৩১ হাজার ৩৬০ এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী দু’লাখ ৩৪ হাজার ৪৫৫ অর্থাৎ সর্বমোট ৬৫ হাজার ৮১৫ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে কেসিসির ৩১টি ওয়ার্ডে ৫৮০টি কেন্দ্রে, ৮০টি মোবালই টিম, এনজিও পরিচালিত ৫০টি কেন্দ্রে এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে বলে সাম্প্রতিক সাংবাদিকদের এক ওরিয়েন্টেশন কর্মশালায় জানানো হয়।

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে মহানগরী এলাকায় আজ শনিবার জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন (২য় রাউন্ড) পালিত হবে। সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক সকাল ৯ টায় খালিশপুরের ১২নং ওয়ার্ডস্থ সূর্যের হাসি ক্লিনিকে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ক্যাম্পেইনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন।

ক্যাম্পেইনে ৬-১১ মাস বয়সী ১০ হাজার ৭’শ ৭৫ জন শিশুকে নীল রঙের এবং ১২-৫৯ মাস বয়সী ৮১ হাজার ৬৭ জন শিশুকে লাল রঙের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

কর্মসূচী সফল করতে নগরীর ৩১টি ওয়ার্ডের ৫৮০টি কেন্দ্র, ৮০টি মোবাইল টিম এবং বেসরকারি সংস্থা কর্তৃক পরিচালিত ৫০টি কেন্দ্রের মাধ্যমে ৬২ জন সুপারভাইজারের তত্ত্বাবধানে প্রায় ১ হাজার ৪’শ ২০ জন স্বেচ্ছাসেবী নিয়োজিত থাকবে।

খুলনার সিভিল সার্জনের কার্যালয় ও কেসিসির সূত্রটি জানায়, আজ সকাল আটটা থেকে একটানা বিকেল চারটা পর্যন্ত ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে এবং এ সাথে প্রচার করা হবে স্বাস্থ্যবার্তাসমূহ। এছাড়া স্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রের পাশাপাশি রেল স্টেশন, বাসটার্মিনাল, ফেরিঘাট, লঞ্চঘাটসহ বিভিন্ন স্থানে অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্যাপসুল খালি পেটে খাওয়ানো যাবে না। এতে সাধারণত কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। জনজীবনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে এমন কোন সংবাদ পরিবেশন না করা এবং জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন সফল ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণার জন্য সাংবাদিকদের সহায়তা কামনা করেন সংশ্লিষ্টরা।