পরিসংখ্যানে আর্জেন্টিনা বনাম ফ্রান্স

রাশিয়া বিশ্বকাপের নক-আউট পর্বের প্রথম লড়াইয়ে আজ ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে মেসির আর্জেন্টিনা। বিগত পরিসংখ্যান পেছনে ফেলে বর্তমান চিন্তা করলে আর্জেন্টিনার চেয়ে শক্তিমত্তায় অনেকটা এগিয়ে ফরাসিরা। তাদের বাঘা বাঘা ফুটবলরারদের সামনে আর্জেন্টাইনদের মূল ভরসার নাম মেসি। পরিসংখ্যানে ফ্রান্সের চেয়ে অনেক এগিয়ে আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে কখনো জিততে পারেনি ফ্রান্স। প্রীতি ম্যাচেও আর্জেন্টাইনদের জয়ের সংখ্যা বেশি। দুই দলের লড়াইয়ের রেকর্ড ও পরিসংখ্যান সবই ল্যাটিং আমেরিকার দেশটির পক্ষে।

এক নজরে পরিসংখ্যানে আর্জেন্টিনা বনাম ফ্রান্স

সর্বমোট ১১ বার মুখোমুখি হয়েছে আর্জেন্টিনা-ফ্রান্স। এই ১১ বারের দেখায় ছয় বারেই জয় পায় আর্জেন্টাইনরা আর দুইবার জিতেছে ফরাসিরা। বাকি তিনটি ম্যাচে ড্র হয়েছে।

১. এখন পর্যন্ত দুইবার বিশ্বকাপ জিতেছে আর্জেন্টিনা। অন্যদিকে ঘরের মাঠে একবারই শিরোপা জিতে ফরাসিরা।

২. বিশ্বকাপে দুইবারের দেখা দুই বারেই আর্জেন্টাইনদের কাছে হারে ফ্রান্স। আর মজার বিষয় হলো সেই দুই বারেই বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছে আর্জেন্টিনা।

৩. দুই পক্ষের মোট ১১ বারের দেখায় আট বারেই আর্জেন্টাইনদের জালে বল পাঠাতে পারেনি ফ্রান্স।

৪. বিশ্বকাপের নক-আউট পর্বের শেষ ১০ ম্যাচে মাত্র একবার হেরেছে ফ্রান্স। আর্জেন্টিনার ও একবার।

৫.কোন প্রতিযোগীতা মূলক ম্যাচে আর্জেন্টিনা কে হারাতে পারেনি ফ্রান্স।

৬.মোট ১১ বারের দেখায় ফরাসিদের জালে ১২ বার বল পাঠায় আর্জেন্টিনা। সেখানে ফ্রান্স পাঠাও সাতবার।

৭.আন্তর্জাতিক ফুটবলে আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বোচ্চ ৬৫ গোল করেছেন লিওনেল মেসি। আর সর্বোচ্চ ১৪৬ ম্যাচে দেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন হাভিয়ের মাশ্চেরানো। দুজনেই আছেন আর্জেন্টিনা দলে।

৮.বিশ্বকাপে নিজেদের শেষ ১৩ বারের অংশগ্রহণে ১২বারই নূন্যতম শেষ ষোলতে যায় আর্জেন্টিনা।

৯.গ্রুপ পর্বে আর্জেন্টিনার ছয় জন হলুদ কার্ড পেয়েছেন। যারা হলেন-মেসি, মার্কোস, নিকোলাস, মাশ্চেরানো, গাব্রিয়েল,বানেগা। অপরদিকে ফ্রান্সের তিনজন পান হলূদ কার্ড। যারা হলেন-পগবা, ব্লেইস মাতুইদি ও কোরোঁতাঁ তোলিসো। আজ হলুদ কার্ড পেলেই এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়বেন এই খেলোয়াড়রা।