বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট মহাকাশে যাচ্ছে ৪ঠা মে

দেশের প্রথম স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু-১’ আগামী ৪ঠা মে উৎক্ষেপণ করা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানারভাল স্পেস সেন্টারের লঞ্চপ্যাড থেকে       পৃষ্ঠা ৫ কলাম ৪
স্যাটেলাইটটি মহাকাশে পাঠানো হবে। টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ গতকাল মানবজমিনকে এ তথ্য জানান। এর আগে সকালে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার তার ব্যক্তিগত ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে জানান, মে মাসের প্রথম সপ্তাহে বঙ্গবন্ধু-১ মহাকাশে যাবে। এদিকে এ পর্যন্ত কয়েকবার স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের তারিখ বদলানো হয়েছে। প্রথমত, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট ২০১৭ সালের ১৬ই ডিসেম্বরে উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা নেয়া হয়।

পরে নতুন তারিখ ঠিক হয় এ বছরের ১লা মার্চ। আবারো পরিবর্তন হয় সম্ভাব্য তারিখ। নতুন তারিখ ধরা হয় মার্চের শেষ সপ্তাহ বা ২৬-৩১শে মার্চের মধ্যে যেকোনো দিন। পরে গত ১৫-২২শে এপ্রিল এই স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের কথা ছিল। পরবর্তীতে তারিখ পরিবর্তিত হয়ে ২৪শে এপ্রিল তারিখ নির্ধারিত হয়। পরে আবার এই তারিখটি পরিবর্তিত হয়ে সর্বশেষ ৩০শে এপ্রিল ছিল নির্ধারিত দিন। সর্বশেষ গতকাল স্যাটেলাইটটির উৎক্ষেপণ প্রতিষ্ঠান ‘স্পেস এক্স’ মহাকাশে উড়ার দিনক্ষণ জানিয়ে দেন। সংশ্লিষ্টরা জানান, স্যাটেলাইটটি নির্মাণ করেছে ফ্রান্সের থ্যালাস অ্যালেনিয়া নামের একটি প্রতিষ্ঠান। স্যাটেলাইটের কাঠামো তৈরি, উৎক্ষেপণ, ভূমি ও মহাকাশের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, ভূ-স্তরে দুটি স্টেশন পরিচালনার দায়িত্ব এ প্রতিষ্ঠানটির। এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। স্যাটেলাইটে থাকছে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার। এগুলোর মধ্যে প্রাথমিকভাবে ২০টি ব্যবহার করবে বাংলাদেশ। অন্যগুলো ভাড়া দেয়া হবে। স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ এর গ্রাউন্ড স্টেশন তৈরি করা হয়েছে গাজীপুর ও রাঙ্গামাটিতে। ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রির অরবিটাল স্লটে (নিরক্ষরেখায়) উড়বে বাংলাদেশের নিজস্ব প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১। বঙ্গবন্ধু-১ উৎক্ষেপণের জন্য ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে ১৫ বছরের জন্য অরবিটাল স্লট বা নিরক্ষরেখা (১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি) লিজ নিয়েছে বাংলাদেশ। ২ কোটি ৮০ লাখ ডলার ব্যয়ে এ স্লট বরাদ্দ নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সঙ্গে রাশিয়ার ইন্টারস্পুটনিক ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব স্পেস কমিউনিকেশনের মধ্যে একটি চুক্তি সই হয়। চুক্তি অনুযায়ী বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ হওয়ার কথা ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সে সময় উৎক্ষেপণ সম্ভব হয়নি। ইন্টারস্পুটনিকের সঙ্গে ১৫ বছরের চুক্তি হলেও এ চুক্তি তিন ধাপে ৪৫ বছর পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। এই প্রকল্পে সরকারের যে টাকা খরচ হবে তা স্যাটেলাইট ভাড়া দিয়ে ৮ বছরে তুলে এনে এই প্রকল্পকে লাভজনক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।