বাংলাদেশকে ভারত আশ্বস্ত করেছে কাউকে ফেরত পাঠানো হবে না

আসমের নাগরিকপঞ্জী (এনআরসি) প্রকাশের অনেক আগে থেকেই ভারত বাংলাদেশকে আশ্বস্ত করেছে, কোনও বিদেশি নাগরিককেই বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে না। নাগরিকপঞ্জীর বিষয়েও বাংলাদেশকে অবহিত করা হয়েছে। এখনও বাংলাদেশকে এ ব্যাপারে নিয়মিত সবকিছু জানানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একটি সুত্র। ভারতের বিভিন্ন মিডিয়ায় এই খবর প্রকাশিত হযেছে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, কিছুদিন আগে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের ঢাকা সফরের সময়ই আসমের নাগরিকপঞ্জীর বিষয়টি আলোচনায় উঠেছিল। বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামালের সঙ্গে আলোচনায় রাজনাথ সিং বাংলাদেশকে নাগরিকপঞ্জীর বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছিলেন। সরকার এ ব্যাপারে কোন প্রক্রিয়ায় এগোচ্ছে তাও জানানো হয়েছিল।

এদিকে আনন্দবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে,  এনআরসি বিতর্কের আঁচ যে বাংলাদেশে পড়তে দেওয়া হবে না তা ঢাকাকে এখন পই পই করে বোঝাচ্ছে ভারত। শীর্ষ সূত্রের উল্লেখ করে বলা হযেছে,  ভারতে এনআরসি নিয়ে প্রবল বিতর্ক শুরু হওয়ার পর ঢাকাকে জানানো হয়েছে নাগরিক পঞ্জি তৈরির প্রক্রিয়া একান্তই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কে যাতে তা ছায়াপাত না-করে সে জন্য সব রকম সতর্কতা নেওয়া হচ্ছে। রাজনৈতিক স্তরেও একই বার্তা দিয়ে ঢাকাকে নিশ্চিন্ত করতে চাইছে নয়াদিল্লি। পত্রিয়ায় আরও লেখা হযেছে,  ভারতীয় নেতৃত্বের সঙ্গে কথা হয়েছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরেরও। এদিকে রাজনৈতিক মহল মনে করছেন, ২০১৯-এর ভোটেও ভারতে অবৈধ মুসলমান অনুপ্রবেশকারীর প্রসঙ্গটিকে প্রচারের হাতিয়ার করবেন নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহেরা। বিরোধীদের অভিযোগ, আরও তিনটি রাজ্যেও এই প্রসঙ্গটিকে তুলে মেরুকরণকে উস্কানি দেবে বিজেপি। কিন্তু এই প্রচারে যাতে কৌশলগত ভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি তৈরি না হয়, সেটাও নিশ্চিত করতে সমান্তরাল ভাবে তৎপর হয়েছে মোদী সরকার। আর সে কারণেই এই আপৎকালীন দৌত্য করা হচ্ছে বলে পত্রিকাটিতে লেখা হযেছে।