বাজারে কমতে শুরু করেছে সবজির দাম

 কিছুদিন ধরেই খুলনার সবজির বাজার ছিল চড়া। কেজি প্রায় সব সবজির দামই ৫০ টাকা ছাড়িয়েছিল।এতে সবজির বাজার নিয়ে অস্বস্তিতে ছিলেন ক্রেতারা। তবে বাজারে শীতের সবজির সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় এসব পণ্যের দাম কমতে শুরু করেছে। সামনের দিনগুলোতে সবজির দাম আরও কমবে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। গতকাল শনিবার বিকেলে নগরীর বিভিন্ন কাঁচাবাজার ঘুরে এমন তথ্য জানা গেছে।

খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতের আসার সঙ্গে সঙ্গে বাজারে সবজির সরবরাহও বেড়েছে। তাই গত সপ্তাহের তুলনায় বাজারে সবধরনের সবজির দাম কমেছে। সামনে আরও কমবে। দাম কমায় বিক্রিও বেশি হচ্ছে বলে জানান তারা।

পাইকারি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানিয়েছেন, অনেকদিন কাঁচাপণ্যের সংকট ছিল কিন্তু এখন শীতকালীন শাক সবজির আমদানি বেড়েছে। তাই দাম অনেকটা কম। আমদানি আরও বাড়লে দাম আরও কমবে বলে জানান তারা।

শনিবার নিউ মার্কেট কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, ঝিঙে ৩৫টাকা, পটল ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, লাল আলু ৩০টাকা, সিম ৫০-৬০টাকা, শসা ৩০, বেগুন ৪০টাকা, টমেটা ১৪০টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৪০- ৫০টাকা, পেঁপে ২০টাকা, চাল কুমড়া ২০টাকা, কচুরমুখি ৩০-৪০টাকা, মুলা ৪০টাকা, কচুর লতি ৪০ থেকে ৫০টাকা, মান কচু ৩০টাকা, বাঁধাকপি ৩০-৫০টাকা, ফুলকপি ৮০টাকা, মেটে আলু ৬০টাকা, লেবু হালিপ্রতি ২২ টাকা, গাজর ১২০টাকা, লাউ প্রতিটি ৩০টাকা, খিরাই ৩০টাকা, কাঁচা মরিচ ১০০টাকা, ধনেপাতা ৭০ ও সজনা ৩০০টাকা, পালং শাক ৬০টাকা, পুইশাক ৩০টাকা, লাউ শাক ৫০টাকা, করলা ৬০টাকা, লাল শাক ৫০টাকা, জলপাই ৫০ থেকে ৬০টাকা, দেশি পেয়াজ ৭০টাকা, আমদানীকৃত পেয়াজ ৬০টাকা, দেশি রসুন ১০০টাকা, চায়না রসুন ১০০ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে।

নিউমার্কেট কাঁচাবাজারে আসা ইসমাইল হোসেন বলেন, দাম কিছুটা কমতে শুরু করেছে। সবজির দাম অনেকটা হাতের নাগালে থাকায় ক্রেতাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। ক্রেতা সেলিনা বেগম বলেন, শাক-সবজির দাম কিছুদিন আগে বৃদ্ধি পেলেও আগের চেয়ে এখন কিছুটা কম।