বিনামূল্যে চিকিৎসা পাবেন মুক্তিযোদ্ধারা

মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আরও একটি সরকারি সুবিধা যোগ হলো। ভাতা, আবাসন সুবিধা এবং সরকারি চাকরিতে প্রাধিকার কোটার পাশাপাশি তাদের জন্য ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসা সুবিধাও চালু হতে যাচ্ছে। ২৫ জুলাই থেকে উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় ও বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালে এই সুবিধা পাওয়া যাবে। এ জন্য হাসপাতালগুলোকে ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা আগাম দেবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

রবিবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এই সেবা দিতে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। এতে স্বাক্ষর করেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব সিরাজুল হক খান ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসার জন্য আমরা ১৪টি বিশেষায়িত হাসপাতালকে ১৫ লাখ টাকা করে অগ্রিম দিয়ে রাখব। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা অনুযায়ী উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় হাসপাতালগুলোকে ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা করে দেব। একজন মুক্তিযোদ্ধা ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত চিকিৎসা সহযোগিতা পাবেন।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। অথচ অতীতের কোনো সরকারই মুক্তিযোদ্ধাদের উন্নয়নে কাজ করেনি। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই মুক্তিযোদ্ধারা সম্মান পাচ্ছে।’

নাসিম বলেন, হাসপাতালে মুক্তিযোদ্ধাকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে কি না বা মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ করা অর্থ বিধি বিধান অনুসরণ করে সঠিকভাবে ব্যয় হচ্ছে কি না তা যাচাই-বাছাই বা নিরীক্ষা করা হবে।