বিশ্ব সুন্দরী প্রতিযোগিতায় ইতিহাস গড়লেন ঐশী

মিস ওয়ার্ল্ড সুন্দরী প্রতিযোগিতায় সেরা ৩০ এ নিজের জায়গা করে নিলেন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্বকারী প্রতিযোগী জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। সোমবার এক ফেইসবুক বার্তায় খবরটি নিশ্চিত করেছে মিস ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষ।

এ প্রতিযোগিতায় নানা পর্ব পেরিয়ে হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ পর্বে দর্শক ভোটের পাশাপাশি বিচারকদের ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করেছেন তিনি।

মিস ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ বিভাগে ২ দশমিক ২ বিলিয়ন ভিউ এবং ২০ মিলিয়ন মানুষের ভোট নেওয়া হয়। ২০ জন প্রতিযোগীর প্রত্যেকে ৯০ সেকেন্ড সময়ের মধ্যে বিচারকদের জানিয়েছেন তাদের স্বপ্ন আর ইচ্ছার কথা। এর মধ্যে ঐশীর স্বপ্ন আর ইচ্ছার কথা শুনে মুগ্ধ হয়েছেন বিচারকেরা।

ঐশী তার স্বপ্নের কথায় উল্লেখ করেছেন বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় জয়ী হওয়ার পর প্রতিবন্ধী শিশুদের পাশে দাঁড়াবেন তিনি। তাদের কল্যানে ফান্ড গঠনের কথাও বলেন তিনি।

ঐশীর এমন বক্তব্যে মুগ্ধ হয়ে বিচারকরা জানান, সেরা ত্রিশে লড়াই করার মতো সব যোগ্যতা আছে ঐশীর।

বিচারকদের প্রশংসায় অভিভূত ঐশী নিজেও।  তিনি বলেন, ‘আমি সত্যিই কৃতজ্ঞ এ সুযোগটি পেয়ে। আমি আরও সামনে যেতে চাই, নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। আমি জানি না কতদূর যেতে পারবো কিংবা গ্র্যান্ড ফিনালে তে কি ঘটতে যাচ্ছে। কিন্তু আমি আমার দেশকে প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে খুবই আনন্দিত।’

বিশ্বের ১১৮ প্রতিযোগীর মধ্য থেকে নির্বাচিত হয়েছেন সেরা ৩০। এর মধ্যে ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের ২০টি গ্রুপের বিজয়ীরা পৌঁছে গেছেন ফাইনাল রাউন্ডে। এ বিভাগে দ্বিতীয় রাউন্ডে জিতেছে ১০টি দেশ। এর মধ্যে বাংলাদেশ ছাড়া আছে ভারত, চিলি, মরিশাস, ভেনেজুয়েলা, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, মেক্সিকো ও উগান্ডা।

এর আগে মিস ওয়ার্ল্ড ট্যালেন্ট ফাইনালে অস্ট্রিয়া, মিসর, রুয়ান্ডা, চিলি ও জাম্বিয়ার প্রতিযোগীদের পাশাপাশি নৃত্য পরিবেশন করে বিচারকদের প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন ঐশী। ৮ ডিসেম্বর চীনের সানাইয়া শহরে অনুষ্ঠিত হবে ‘মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৮ ’-এর জমকালো গ্র্যান্ড ফিনালে। সেখানেই ঘোষণা করা হবে সেরা সুন্দরীর নাম। এবার বিশ্ব সুন্দরীকে মুকুট পরিয়ে দেবেন গত আসরের ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ ভারতের মানুষী চিল্লার।

চলতিবছর অক্টোবরে ত্রিশ হাজার প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ হন পিরোজপুরের মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। এর আগে মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় ২০১৭ সালে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন জেসিয়া ইসলাম। তার আগে বাংলাদেশ থেকে ২০০১ সালে ৫১তম মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন তাবাসসুম ফেরদৌস শাওন।

বাংলাদেশ থেকে ১৯৯৪ সালে প্রথম বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নেন আনিকা তাহের। এরপর ইয়াসমিন বিলকিস সাথী (১৯৯৫), রেহনুমা দিলরুবা চিত্রা (১৯৯৬), শায়লা সিমি (১৯৯৮), তানিয়া রহমান তন্বী (১৯৯৯) ও সোনিয়া গাজী (২০০০) মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন।