যে সময়গুলোতে মুখ বন্ধ রাখাই উত্তম!

কথায় আছে, ‘বোবার কোনো শত্রু নেই’। অবশ্য বর্তমান যুগে এই উপদেশ বাক্য তেমন একটা কার্যকর নয়। কেননা, হালের জমানায় শত্রুরা বোবাদেরও ছেড়ে কথা বলে না। তবে বিশেষ কিছু মুহূর্তে কথার বদলে নিশ্চুপ থাকাটাই বুদ্ধিমানের কাজ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞেরা।

যোগাযোগ বিশেষজ্ঞেরা মূলত ৫টি ক্ষেত্রে মুখ বন্ধ রাখার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। পাঠকদের জন্য তা উল্লেখ করা হলো,

১. স্বজন হোক কিংবা পরিচিত.. কারো মৃত্যুর পর তার আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে চুপ থাকা সবচেয়ে উত্তম। কেননা মুখে নানা সান্ত্বনার বাণী দেয়ার চাইতে নীরবে মনের সহানুভূতির জানানোই সেখানে বেশি প্রয়োজন।

২. কোনো গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হলে সেখানে প্রয়োজন ছাড়া কথা না বলা সবচেয়ে ভালো। সেসব স্থানে আগ বাড়িয়ে কথা বলার চাইতে নীরবে শুনে তারপর মন্তব্য করা বাঞ্চনীয়। এতে নিজের বুদ্ধিমত্তারও প্রমাণ দেয়া হয়। এসব স্থানে চুপ করে থাকার উপকারও অনেক।

৩. কোনো পরিস্থিতিতে নিজেকে বিভ্রান্ত মনে করলে সবচেয়ে ভালো চুপচাপ থাকা। কেননা বিভ্রান্তিকর মুহূর্তে বেফাঁস কথা বলার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। এতে জটিলতা আরও বাড়তে পারে।

৪. কাউকে ফালতু তর্ক করতে দেখলে তাতে তাল না দিয়ে চুপ থাকুন। এতে নিজেরই ভালো!

৫. কাজের সময়ে যতটা সম্ভব কম কথা বলুন। একে মনযোগ বাড়বে। দিনের শেষে ক্লান্তিবোধও কম হবে।