সহস্রাধিক সাইট পেজে নজরদারি

জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৎপরতা বাড়িয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিশেষ নজর রাখা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। নির্বাচন ঘনিয়ে এলে দেশের রাজনৈতিক অবস্থা উত্তপ্ত হয়ে উঠতে পারে। এর উপর ভিত্তি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় হতে পারে একটি চক্র। যারা নানা  ধরনের উস্কানিমূলক পোস্ট, তথ্য এমনকি গুজব ছড়িয়ে দিতে পারে বলে গোয়েন্দাদের ধারণা। ইতিমধ্যে সহস্রাধিক সাইট, ফেসবুক আইডিতে নিয়মিত সাইবার টহল চলছে। গত কয়েক মাসে অর্ধশতাধিক ফেসবুক আইডি বন্ধ করা হয়েছে। এসব আইডি থেকে উস্কানিমূলক মিথ্যা তথ্য প্রচার করা হতো বলে গোয়েন্দারা জানান।

সূত্রমতে, ‘কোটা সংস্কার আন্দোলন’ ও ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ফেসবুক আইডি, পেইজ, লাইভ ও ইইটিউবকে এক্ষত্রে ব্যবহার করা হয়েছে। এই আন্দোলনের যৌক্তিকতা প্রকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। দ্রুত গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। গোয়েন্দা তথ্যানুসারে, সেইসঙ্গে গুজবও রটানো হয়েছে। ইতিমধ্যে সরকার বিরোধী নানা বক্তব্য ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সূত্রমতে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত বক্তব্য, ছবি, ভিডিও নজরদারি করা হচ্ছে। যারা নাশকতা সৃষ্টি করতে পারে এরকম ব্যক্তিদের ছবি, তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। গত কয়েক মাসে প্রায় তিন শতাধিক ব্যক্তির তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। গোয়েন্দারা যাদের তথ্য সংগ্রহ করছেন তাদের অনেকেই বিরোধী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। নিয়মিত সাইবার টহলের কারণে ভার্চুয়াল জগতের বহু আগাম তথ্য এবং পরিকল্পনা জানা সম্ভব হচ্ছে বলে দাবি করেছেন গোয়েন্দারা। কোনো কোনো ক্ষেত্রে নাশকতার পরিকল্পনা ভেস্তে দিচ্ছেন বলেও জানান গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি সোহেল রানা বলেন, সাইটগুলো নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে। তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। ব্যবহারকারীদের প্রতিটি তৎপরতা সম্পর্কে পুলিশ অবগত আছে। শান্তিশৃঙ্খলা ভঙ্গ বা বেআইনি কোনো কাজ করলেই পুলিশ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানান তিনি।

ডিএমপি’র সিটিটিসি’র সাইবার ক্রাইম ইউনিট সূত্রে জানা গেছে, ডিএমপি’র সাইবার ক্রাইমে যেসব অভিযোগ আসে তার বেশির ভাগই ব্যক্তিগত বিষয়ে। রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপ সংক্রান্ত অভিযোগ খুবই কম। তবে এসব অভিযোগ গুরুত্বসহকারে দেখা হয়। সেইসঙ্গে নির্দিষ্ট কিছু ফেসবুক আইডি, পেইজ নজরদারিতে রয়েছে বলে জানা গেছে।