সাতক্ষীরা ও ভালুকায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

সাতক্ষীরা ও ময়মনসিংহের ভালুকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ ৩ জন নিহত হয়েছেন। শনিবার রাতে গভীর রাতে পৃথক এ দু’টি ঘটনা ঘটে। পুলিশের দাবি, সাতক্ষীরায় নিহত ২ জন মাদক ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ৫ পুলিশ সদস্য। অপরদিকে ভালুকায় নিহত ব্যক্তি ডাকাত সরদার। উভয় ঘটনায় দেশি ও বিদেশি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, শনিবার মধ্যরাতে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাঁশদহা গ্রামের কয়ারবিল ব্রিজের পাশে মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়। এতে ২ জন নিহত হন। এ সময় আহত হয়েছে ৫ পুলিশ সদস্য। গুলিবিদ্ধ নিহত মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাঁশদহা গ্রামের আবদুল গণির ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৩৮) ও কলারোয়া উপজেলার কেড়াগাছি গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৪০)। তারা দু’জনেই আন্তঃজেলা মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি পুরিশের। তাদের বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলাও রয়েছে। এ ঘটনায় আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন, এসআই রিয়াদুল, এএসআই সুমন ,এএসআই মাজেদুল ও দুই কনস্টেবল রুবায়েত ও তুহিন। সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ আহমেদ জানান, শনিবার বিকালে মাদক ব্যবসায়ী দেলোয়ার ও আবুল কালামকে কিছু গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ গোয়েন্দা পুলিশ বাঁশদহা বাজার থেকে আটক করে। রাতে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তারা স্বীকার করে যে আজ রাতে মাদকের একটি বড় চালান ভারত থেকে আসবে। তাদেরকে নিয়ে মাদকের চালান উদ্ধারে যায় পুলিশ। তিনি জানান, বাঁশদহার কয়ার বিল এলাকায় পৌঁছাতেই আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা তাদের সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছোড়ে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। তিনি আরো জানান, গোলাগুলির এক পর্যায়ে তাদের দুজনকে গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায়। গ্রামবাসীর সহায়তায় তাদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষনা করেন। তাদের কাছ থেকে এ সময় একটি ওয়ান শুটার গান, ১ রাউন্ড গুলি ও বেশ কিছু মাদক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়। এদিকে, আহত পুলিশ সদস্যদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান।
অপরদিকে ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মুরাদ আকন্দ (৩০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, নিহত মুরাদ আকন্দ ডাকাত দলের সর্দার। মুরাদ ভালুকা উপজেলার বগাজান গ্রামের শাহজাহান আকন্দের ছেলে। তার বিরুদ্ধে ডাকাতিসহ ৫টি মামলা রয়েছে। শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের হাইজ্যাক  মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি রামদা, একটি চাপাতি ও একটি ছোরা উদ্ধার করা হয়েছে। ভালুকা মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকাদার জানান, ভরাডোবা-ঘাটাইল সড়কের উথুরা হাইজ্যাক মোড় ব্রিজে একটি ডাকাত দল ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে- এমন খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় ডাকাত দল পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ও এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়ে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থলেই ডাকাত সর্দার মুরাদ আকন্দকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল (মমেক) হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, মুরাদ এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ডাকাত সর্দার। তার বিরুদ্ধে ভালুকা থানায় ডাকাতিসহ ৫টি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া পার্শ্ববর্তী থানায়ও বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে।