সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর হামলায় নিহত ৭০

সিরিয়ার সেনাবাহিনী ও মিত্র রাশিয়ার বিমানবাহিনী বলেছে তারা দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় ডেরা অঞ্চলে ৭০ জন বিদ্রোহীকে হত্যা করেছে। এর ফলে ওই অঞ্চল থেকে বিপুল সংখ্যায় বেসামরিক লোকজন পালিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ওই অঞ্চলটি হলো বিরোধীদের সর্বশেষ আশ্রয়স্থল। যুদ্ধ বিষয়ক পর্যবেক্ষক ও বিদ্রোহীদের সূত্রগুলো বলেছে, সোমবার ওই শহর থেকে পালিয়ে গেছে কয়েক হাজার মানুষ। কারণ, তাদের ওপর সরকারের হেলিকপ্টার থেকে ব্যারেল বোমা ফেলা হচ্ছিল। শহরে ফেলা হয়েছে লিফলেট।

তাতে স্থানীয় অধিবাসীদের সতর্ক করে বলা হয়েছে, সেনাবাহিনী আসছে। এতে বেসামরিক লোকজনকে আহ্বান জানানো হয় যাতে তারা সন্ত্রাসীদেরকে বের করে দেয়, যেমনটা করেছে পূর্বাঞ্চলীয় ঘোটার মানুষজন। ডেরা অঞ্চলটি গত বছর থেকেই সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের বাহিনী, যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সমর্থিত বিদ্রোহী গ্রুপ ও জর্ডানপন্থি গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে সেখানে বিদ্রোহীরা অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েছে। এই সুযোগে ডেরা এলাকার দখল নিতে চেষ্টা করছে সরকারি বাহিনী। গত ৬ দিন ধরে রাশিয়ান বিমানবাহিনী আকাশ থেকে সমর্থন দিচ্ছে। আর সেই সুযোগে ডেরা অঞ্চলের অনেক গভীরে প্রবেশ করেছে আসাদের বাহিনী। হামলায় নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ২৬ জন। বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে ১৭ হাজার মানুষ। বৃটেনভিত্তিক সিরিয়ান অবজার্ভেটরি ফর হিউম্যান রাইস এ তথ্য দিয়েছে। এভাবে পালিয়ে আসা একজন হলেন মুহাম্মদ আবু কাসিম (৪৫)। তিনি বলেছেন, আমি ও আমার স্ত্রী শুধু আমাদের কাপড় নিয়ে পালিয়ে এসেছি। কারণ, আমার বাড়িটা সম্পর্ণ ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। ভারা বোমা হামলায় গ্রামের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে এখন যেন নরকের রূপ নিয়েছে। রোববারের বিমান হামলায় আক্রান্ত হয়েছে বুশরা আল হারিরি শহরের কাছের একটি মেডিকেল সেন্টার। এতে অনেকটা ক্ষতি হয়েছে তবে কেউ হতাহত হন নি।