সুন্দরবনে অস্ত্র-গুলিসহ পাঁচ দস্যু গ্রেপ্তার

খুলনার সুন্দরবনে র‌্যাব-৬’র পৃথক অভিযানে বনদস্যু আলামিন বাহিনীর দুইজনসহ পাঁচ দস্যুকে আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে। র‌্যাব-৬’র স্পেশাল কোম্পানি কমান্ডার মো. এনায়েত হোসেন মান্নান ও লে. কমান্ডার জাহিদের নেতৃত্বে পৃথক অভিযানে মঙ্গলবার ভোরে দাকোপের পানখালী ঘাট ও বটিয়াঘাটা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এসময় তাদের কাছ থেকে একটি বিদেশি বন্দুক, তিনটি দেশীয় পাইপগান ও ১৬ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও দুটি রামদা উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তার জলদস্যুরা হলেন- কয়রার মান্দারবাড়িয়া এলাকার রুবেল গাজী, মহেশ্বরীপুর এলাকার শাহিন সানা, কয়রা থানার মটবাড়ী গ্রামের সিরাজুল গাজী, সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর থানার দাতিনা খালী শাহাজামাল সানা ও একই থানার চন্ডিপুর গ্রামের নূরুজ্জামান মোড়ল।

র‌্যাব-৬’র স্পেশাল কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এনায়েত হোসেন মান্নান জানান, বিকাল পৌনে ৩টার দিকে জেলার বটিয়াঘাটা থানার মটখেয়াঘাট ফুলতলা ছোট বাজার থেকে ৫০০ গজ দক্ষিণ পূর্ব কোনে রুপসা কাজী পাতা নদীর পশ্চিম পাড়ে কয়েকজন নৌপথে ডাকাতি করার জন্য অবস্থান করছে। এমন সংবাদে ওই স্থানে অভিযান চালানো হয়।

গ্রেপ্তার জলদস্যুদের জিজ্ঞাসাবাদে সিরাজুল গাজী জানান, সে রবিউল বাহিনী ও আনায়োরুল বাহিনীতে গত তিন বছর কাজ করে নিজের নতুন বাহিনী গঠন করে নামার উদ্যোগ গ্রহণ করে।

এর আগে দাকোপের পানখালী ঘাট এলাকায় মঙ্গলবার ভোরে অভিযান চালিয় র‌্যাবের একটি দল। এসময় সুন্দরবনের দস্যু আলামিন বাহিনীর সদস্য রুবেল গাজী ও শাহীন সানাকে অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

র‌্যাব-৬’র অধিনায়ক উইং কমান্ডার হাসান ইমন আল রাজীব জানান, সুন্দরবনে দস্যুতার সাথে যারাই জড়িত রয়েছে সকলের জন্য রেড এলার্ড জারি হয়েছে। কোন ছাড়া দেয়ার সুযোগ নেই। সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করতে প্রস্তুত র‌্যাবসহ গঠিত টাস্কফোর্স সদস্যরা।