27 মে 2017

দাকোপে আমন ধানের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

161219-dacope riceখুলনানিউজ.কম:: খুলনার দাকোপ উপজেলায় এবার আমন ধানের বাম্পার ফলনও হয়েছে। দামও ভাল পেয়ে কৃষকের মুখে  খুশি হাসি। কিন্তু এলাকার কিছু কথিত ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ধানের দাম কমানোর পায়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,

এ উপজেলায় লবণ পানিতে দীর্ঘদিন যাবৎ একটানা চিংড়ি চাষ করার ফলে জমিতে অতিরিক্ত লবনাক্ততার কারনে আমন ফসল শুন্যের কোঠায় চলে গিয়েছিল। কিন্তু গত কয়েক বছর যাবৎ লবণ পানি বিরোধী আন্দোলনের পর পানি উন্নয়ন বোর্ড, ভেড়ীবাঁধের ভিতর পানি তুলে চিংড়ি চাষ করা উপজেলার অধিকাংশ এলাকায় বন্ধ করে দিয়েছে। এমনি অবস্থায় কৃষকরা মিষ্টি পানিতে এবার উপজেলার পানখালী, বানিশান্তা, লাউডোব, কৈলাশগঞ্জ, বাজুয়া, দাকোপ, তিলডাঙ্গা, চালনা পৌরসভা, কামারখোলা ও সুতারখালী ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকায় আমন চাষ করে। শুরু থেকেই এবার আমনের ভাল ফলনের আশা করেছিল এলাকার কৃষকরা এবং ফলনও হয়েছে বাম্পার। দামও ভাল পেয়ে কৃষকরা খুব খুশি। এবার এ উপজেলায় আমনের চাষ হয়েছে ১৯ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উপসি ১২ হাজার হেক্টর। ইতি মধ্যে কোন কোন এলাকায় উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান কাটা শুরু হয়েছে।  তবে এ বছর ২৩ ধানের ফলন বেশী ভাল হয়েছে বলে এলাকার কৃষকরা জানান। দীর্ঘকাল অভাব অনাটনের পর এ অঞ্চলের কৃষকরা পূর্বের ন্যায় বিঘা প্রতি ২৫ থেকে ৩০ মন আমন পাচ্ছেন বলে জানান। এদিকে এলাকার কিছু কথিত ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ধানের দাম কমানোর পায়তারা করছে বলে কৃষকরা অভিযোগ তুলেছেন। আনন্দ নগর এলাকার কৃষক আঃ হাই শেখ জানান তিনি মোট সাড়ে ৮ বিঘা জমিতে আমনের চাষ করেছেন। এর মধ্যে পাঁচ বিঘাতে ২৩ ধানের চাষ করেছেন। ফলনও পেয়েছে বাম্পার অথাৎ বিঘা প্রতি ২৭ মন এবং মন প্রতি দামও পেয়েছেন সাত‘শ থেকে সাড়ে সাত‘শ টাকা। এতে সে খুব খুশি বলে জানান। একই এলাকার কৃষক শফিকুল ইসলাম মোল্যা জানান ধানের ফলন হয়েছে খুব ভাল দামও চলছিল ভাল কিন্তু এক শ্রেণীর সুবিধাবাদী কথিত ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম কমানোর পায়তারা চালাচ্ছে। চালনা এলাকার কৃষক দেবাশীষ ঢালী জানান তিনি চার বিঘা জমিতে ২৩ ধানের চাষ করে বিঘা প্রতি ৩০ মন ধান পেয়েছেন। এবিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ মোছাদ্দেক হোসেন বলেন এ বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবং পোকা আক্রমন অনেকাংশে কম থাকায় আমনের ফসল খুব ভাল হয়েছে।

//শচীন্দ্রনাথ মন্ডল, দাকোপ, খুলনা: ১৯-১২-২০১৬ //