26 জুন 2017

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সকলকে রুখে দাঁড়াতে হবে; এমপি মিজান

170516-mp-ytrখুলনানিউজ.কম:: খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মুহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেছেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সকলকে রুখে দাঁড়াতে হবে। জঙ্গি দমনে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। আলেম-ওলামা ও ঈমাম-মোয়াজ্জিনরা সমাজের নেতা

হিসেবে সন্ত্রাস ও জঙ্গিতৎপরতা রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন। তিনি আজ দুপুরে খুলনা বিভাগীয় ইসলামিক ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে খুলনা জেলার প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ইমাম, মাজার-খানকা প্রতিনিধি, জেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ হাফেজ ও বিশিষ্ট আলেম-ওলামাদের নিয়ে সস্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে ইসলামের আহবান শীর্ষক বিশেষ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

170516-mp-2সংসদ সদস্য বলেন, ইসলাম হলো শান্তির ধর্ম। কিšতু কিছু মানুষ আজ ধর্মকে ব্যবহার করে ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মের নামে হত্যা, সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে। কিন্তু তাদের মনে রাখতে হবে এ দেশ অলি আউলিয়ার দেশ। এদেশের মানুষ শান্তিপ্রিয়, এদেশে কখনো জঙ্গিবাদ মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারবে না।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ডের গতিধারাকে বাধাগ্র¯ত করার জন্য যারা জঙ্গিবাদ কার্যক্রম চালাচ্ছে তারা সমাজের শত্রু। প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণাঞ্চলের উন্নয়নের জন্য আনেক প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে পদ্মাসেতু, বিমানবন্দর, মংলাবন্দর অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং রেলস্টেশনসহ আরো অনেক উন্নয়ন প্রকল্প। সুতরাং এ অঞ্চলের মানুষ হিসেবে আমাদেরও কিছু প্রতিদান দিতে হবে। শুক্রবারের খুৎবার সময় জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে মুসল্লীদেরকে সচেতন করার জন্য তিনি ইমামদের প্রতি আহবান জানান।
    
অনুষ্ঠানে বিশেষ     অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি মোঃ দিদার আহম্মদ, ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির উপপরিচালক শাহীন বিন জামান এবং তালিমুল মিল্লাত মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এ এফ এম নাজমুস সউদ। খুলনা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক মোঃ লোকমান হোসেন এতে সভাপতিত্ব করেন। স্বাগত বক্তৃতা করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের  সহকারী পরিচালক একেএম সা’দ উদ্দিন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যর মধ্যে বক্তৃতা করেন জেলার জাতীয় শ্রেষ্ঠ পুরস্কারপ্রাপ্ত ইমাম মুফতি মোঃ নাঈম আশরাফ এবং ইমাম মাওলানা ইব্রাহীম খলিল।

অনুষ্ঠানে অন্যান্য বক্তারা বলেন, শুধু আইন প্রয়োগের মাধ্যমে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়, এ জন্য প্রয়োজন আইনশৃঙ্খলার পাশাপাশি সমাজের সর্ব¯তরে শাšিতর ধর্ম ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরে জনসচেতনতা সৃষ্টি করা।

অনুষ্ঠানে খুলনা জেলার প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ইমাম, মাজার খানকা প্রতিনিধি, জেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ হাফেজ ও বিশিষ্ট আলেম-ওলামারা অংশগ্রহণ করেন। খুলনা বিভাগীয় ইসলামিক ফাউন্ডেশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

পরে প্রধান অতিথি হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

// ১৬-০৫-২০১৭ //