27 মে 2017

আগামী নির্বাচনে পুনরায় শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আনতে দলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে

খুলনানিউজ.কম:: খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ বলেন, জাতির জনকের সুযোগ্য উত্তোসূরী দেশরত্ন জনেনেত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘ নির্বাসন থেকে  স্বৈরশাসনের যাতাকলে নিষ্পেশিত জনগণের আলোকবর্তিকা হয়ে ১৯৮১ সালের ১৭ই মে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেন। তার দৃঢ়, সুযোগ্য ও দূরদর্শী নেতৃত্বে

বাঙালীর ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত এবং ভিশন-২০২১ ঘোষণার মাধ্যমে দেশকে সমৃদ্ধশালী ও উন্নয়নের অভিষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আগামী ২০১৯ সালের নির্বাচনে পুনরায় জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আনতে দলের দলীয় নেতাকর্মীদের সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তিনি আরও বলেন, বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনে দল ঐক্যবদ্ধ ছিল বলেই বাংলাদেশের মধ্যে রেকর্ডসংখ্যক ভোটে আমাকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা সম্ভব হয়েছিল। এজন্য তিনি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

বুধবার বিকাল ৩টায় দলীয় কার্যালয়ে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের কার্য্যনির্বাহী কমিটির জরুরী সভায় সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বাবু নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি, জাতীয় কমিটির সদস্য এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ নুরুল হক এমপি, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব মোল্যা জালাল উদ্দিন, এ্যাডভোকেট কাজী বাদশা মিয়া, এ্যাডভোকেট সোহরাব আলী সানা, গাজী মোহাম্মদ আলী, এ্যাডভোকেট এম.এম. মুজিবুর রহমান, এফ.এম. মাকসুদুর রহমান, বাবু রঘুনাথ রায়, গাজী আব্দুল হাদী, এ্যাডভোকেট সুজিত কুমার অধিকারী, মোঃ কামরুজ্জামান জামাল, মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু, মোঃ নুরুজ্জামান, এ্যাডভোকেট নব কুমার চক্রবর্তী, মোঃ আসলাম খান, অধ্যক্ষ এ.বি.এম. শফিকুল ইসলাম, এ্যাডভোকেট নিমাই চন্দ্র রায়, এ্যাডভোকেট ফরিদ আহমেদ, আলহাজ্ব নুরুন নবী খান পল্টু, আলহাজ্ব জোবায়ের আহমেদ খান জবা, রফিকুর রহমান রিপন, ডাঃ তড়িৎ কান্তি ঘোষ, হালিমা ইসলাম, এ্যাডভোকেট কেরামত আলী, কাজী শামীম আহসান, অধ্যাপক মিজানুর রহমান, মোকলেসুর রহমান বাবলু, ডাঃ মোঃ শেখ শহিদুল উল্লাহ, এ্যাডভোকেট শাহ্ আলম, শেখ শহিদুল ইসলাম, আশরাফুল আলম খান, খান নজরুল ইসলাম, আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন, শেখ আকরাম হোসেন, কামাল উদ্দিন বাদশা, এ্যাডভোকেট রবীন্দ্রনাথ মন্ডল, অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বাবুল, মালিক সরোয়ার উদ্দিন, এ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান কালু, অধ্যক্ষ নুর উদ্দিন আল মাসুদ, নুরে আলম জোয়াদ্দার, এ্যাডভোকেট তারিক হাসান মিন্টু, জি.এম. মহসীন রেজা, মুনসুর আলী খান, রশিদুজ্জামান মোড়ল, মোস্তফা রফিকুল ইসলাম সানা, বিনয় কৃষ্ণ রায়, মোল্লা এমদাদুল হক, মাষ্টার ফরহাদ হোসেন, আব্দুল মজিদ ফকির, শফিকুর রিয়াজ জানু, অধ্যক্ষ দেয়োয়ারা বেগম, জয়ন্তী রানী সরদার, শোভা রানী হালদার, ফারহানা নাজনীন।

সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ বিপুল ভোটে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায়, জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক কাজী শামীম আহসান জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক পুনঃনির্বাচিত হওয়ায় এবং জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আলহাজ্ব জোবায়ের আহমেদ খান জবা খুলনা শিল্প ও বণিক সমিতির পরিচালক নির্বাচিত হওয়ায় জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয়। অন্যদিকে সভার শুরুতে পাইকগাছা উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাডভোকেট আবুল হোসেন জোয়াদ্দার, শেখ রেজাউল করিম, সোহরাব আলী গাইন, কয়রার আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা জামির আলী গাজী, নিখীল চন্দ্র সানা, শাহ্ নেওয়াজ প্রিন্স, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা শেখ মোঃ ফেরদৌস, মুন্সী আব্দুল্লাহ, ডুমুরিয়ার আওয়ামী লীগ নেতা কিরণ চন্দ্র বিশ্বাস, সুধীর সরদার, রূপসা ঘাটভোগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ নাফিজসহ যে সকল দলীয় নেতা কর্মী সম্প্রতি মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার শান্তি কামনা করে ০১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। সভায় জননেত্রী শেখ হাসিনার ৩৭তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে ১৬ কোটি মানুষের মুক্তির অগ্রদূত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়। এছাড়াও আগামী ২০ মে ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিতব্য বর্ধিত সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে ০৮ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দলের অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

// ১৭-০৫-২০১৭ //