28 মার্চ 2017

বড় বড় প্রকল্প সমাপ্ত হলে মংলা বন্দরের কর্মচাঞ্চল্যতা বহুগুনে বেড়ে যাবে

170316-Mongla-NBRখুলনানিউজ.কম:: জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো: নজিবুর রহমান বলেছেন, মংলা বন্দরকে ঘিরে আগামীতে সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচিত হবে। পদ্ম সেতু ও মংলা অর্থনৈতিক অঞ্চলসহ ৭/৮টি প্রকল্প বড় বড় সমাপ্ত হলে এ বন্দরের কর্মচাঞ্চল্যতা বহুগুনে বেড়ে যাবে।

তাই তিনি এখনই বন্দর ব্যবহারকারীদেরকে ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর প্রস্তুতি গ্রহণের তাগিদ দেন। মংলা বন্দর দিয়ে কন্টেইনার পণ্য আমদানী কমে গেলেও জাহাজের আগমন বেড়েছে। এতে আমদানীর অগ্রগতি হচ্ছে।

170316-Mongla-32কন্টেইনার বৃদ্ধি পেলে আরো বেশি অগ্রগতি হবে। মংলায় বেজা চালু হলে কন্টেইনার পণ্য আমদানী-রপ্তানী বর্তমানের তুলনায় বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া মংলা বন্দর চ্যানেল ড্রেজিং ও বন্দর ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে খরচ কমিয়ে আনাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে থাকা উন্নয়ন প্রকল্প দ্রুত ছাড় ও বাস্তবায়নের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আয়োজনে বৃহস্পতিবার দুপুরে মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এনবিআর (জাতীয় রাজস্ব বোর্ড) ও ইআরএফ (ইকনোমি রিপোর্টাস ফোরাম) পার্টনারশীপ মতবিনিময় সভায় তিনি এ সব কথা বলেন। মংলা ইপিজেডের বিনিয়োগকারীরা দীর্ঘদিনেও কাস্টমস থেকে কেন বন্ড সুবিধা পাচ্ছে না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, যারা বন্ডের আবেদনকারী তাদের বিষয়টি দ্রুত বিবেচনা করা হবে। যারা বন্ড সুবিধা পাবেন তাদের দায়িত্ব এটার অপব্যবহার না করা। কারণ যারা বন্ড সুবিধা পেয়েছেন তাদের মধ্যে বেশ কিছু অসাধু ব্যবসায়ী এর অপব্যহারও করেছেন। অপব্যবহারের ফলে প্রতি বছর যে পরিমাণ রাজস্ব হারাচ্ছি তা দিয়ে বছরে ২টি পদ্মা সেতু নির্মাণ করা সম্ভব। সুতরাং বন্ড সুবিধার যথার্থ ব্যবহার করতে পারলে সরকারের উন্নয়নের অক্্িরজেন রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে। দক্ষিণাঞ্চলের তথা দেশের সমগ্র এলাকার যে উন্নয়ন চাহিদা আছে তা সরকারের পক্ষে পূরণ করা সহজ হবে।
সভায় মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ফারুক হাসান বন্দরের বিরাজমান বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরার পাশাপাশি বেশ কিছু উন্নয়নমুলক সুপারিশ পেশ করেন। এ সকল সমস্যা সমাধান ও উন্নয়ন প্রকল্প দ্রুত যাতে বাস্তবায়ন করা যায় সেক্ষেত্রে এনবিআর চেয়ারম্যান বন্দর চেয়ারম্যানকে আশ্বস্থ করেন। বন্দর কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায় মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এ কে এম ফারুক হাসান, কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন’র জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, বাগেরহাট জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস, মংলা কাস্টসম হাউসের কমিশনার মো: আল আমিন প্রামানিক, যুগ্ম কমিশনার জাহাঙ্গীর হোসেন, সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সুলতান আহমেদ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, স্থানীয় প্রশাসনসহ বন্দর ব্যবহারকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

// আবু হোসাইন সুমন, মংলা: ১৬-০৩-২০১৭ //