28 মে 2017

চুয়াডাঙ্গায় সড়কে গাছ ফেলে গাড়িতে গণডাকাতি

খুলনানিউজ.কম:: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার ঘোড়ামারা ব্রিজের কাছে সড়কে গাছ ফেলে ২৫ গাড়িতে গণডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসব গাড়ির মধ্যে তিনটি নৈশকোচও রয়েছে। ওই সময় ডাকাতরা যাত্রীদের সঙ্গে থাকা টাকা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ সর্বস্ব লুটপাট করে নিয়ে

যায়। ডাকাতের হামলায় তিনজন আহত হয়েছেন। রবিবার রাত নয়টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, আলমডাঙ্গা থেকে ঢাকাগামী রয়েল এক্সপ্রেস নামে একটি পরিবহন চুয়াডাঙ্গা যাচ্ছিল।  ঘোড়ামারা ব্রিজের অদূরে আসার পর গাড়িটি ডাকাতির কবলে পড়ে। ডাকাতরা সড়কের পাশের গাছ ফেলে বেরিকেড দিয়ে চালককে জিম্মি করে যাত্রীদের সর্বস্ব লুটে নেয়। একইভাবে ঢাকাগামী চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহন, পূর্বাশা পরিবহন, ট্রাক, মাইক্রোবাস ও পিকআপ ভ্যানসহ ২৫টি যানবাহনে লুটপাট করে ডাকাতরা।

ডাকাতির কবলে পড়া মাইক্রোবাসের যাত্রী সুভাষ চ্যাটার্জি জানায়, কুষ্টিয়া থেকে ফেরার পথে ডাকাতের কবলে পড়েন তারা। এ সময় গাড়িতে থাকা স্ত্রী, বোন ও মাসহ তাদের শরীরে থাকা স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন  ও নগদ টাকা লুট করে ডাকাতরা।

রয়েল এক্সপ্রেসের যাত্রী আমজাদ হোসেন জানান, সাত থেকে আটজন ডাকাত সদস্য মুখ বেঁধে ডাকাতি করতে আসে। এ সময় তাদের হাতে ধারালো অস্ত্র ছিল। ডাকাতদের হামলায় রয়েল পরিবহনের চালক শামীম হোসেনসহ তিনজন আহত হন।

রয়েল পরিবহনের চালক শামীম হোসেন অভিযোগ করেন, প্রতিদিন ঘোড়ামারা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় পুলিশের একটি টহলদল থাকার কথা থাকলেও ডাকাতির সময় কোনো পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে ছিল না। এ কারণেই প্রায় আধা ঘণ্টা ধরে ডাকাত সদস্যরা নির্বিঘ্নে তাণ্ডব চালায়।

জানতে চাইলে চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তরিকুল ইসলাম জানান, চালকের অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে ওই সময় দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

// ২০-০৩-২০১৭ //