29 মে 2017

মাগুরায় আ.লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩০

খুলনানিউজ.কম:: মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার বালিদিয়া গ্রামে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। এছাড়াও এ ঘটনায় অন্তত ৬০টি বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শতাধিক রাউন্ড গুলি ও

টিআর সেল ছুড়েছে বলে জানা গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বালিদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী মফিজ মিনহা ও অপর আওয়ামী লীগ কর্মী ইউনুস শিকদারের সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় সোমবার সকালে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

বালিদিয়া গ্রামের বাসিন্দা রবিউল ইসলাম জানান, সকালে আওয়ামী লীগ নেতা মফিজ মিনহার ভাইয়ের মেয়ে সুমাইয়া প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় পথে প্রতিপক্ষ অপর আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুস শিকদারের সমর্থক পিকুল ও রেবেকা তাকে মারধর করে। এ খবর জানাজানি হলে উভয় পক্ষের শতাধিক সমর্থক ঢাল-সড়কি, রামদা, ইটপাটকেল নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পুলিশ ঘটনার খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শতাধিক রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

প্রতিপক্ষের হামলা এবং পুলিশের রাবার বুলেটে আহতদের মধ্যে আজগর (৩০), ফিরোজ মৃধা (৫০), ইতি (২৫), আতিয়ার মোল্লা (৩৫), উমর শিকদার (৩০), বকুল মোল্লা (৬০), মোস্তফা (৫০), জাকির (৪০), ইদ্রিস মিনহা (৪০), হান্নান মিনহা (৩৫), সামাদ মোল্লা (৩০), শাহীন (২৫), শেফালী (৩৫), শামসুন্নাহার (৪০), নাজমুল (২০), হালিম (৪৫), সুমন (২৫), এনামুল (৩০) কাজলকে (২০) মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আসির ফকির, মফিজ মিনহা, সাইদ মিনহা, নবির মিনহা, এনামুল, তোয়াক্কেল হোসেন, উসমান মিনহা, ইস্রাফিল মিনহা, আতর মিনহা, হারুন মিনহা, ইসহাক মিনহা, আলিম মিনহা, মাসুদ মিনহা, বাবু মিনহা, দলিল উদ্দিন মিনহা, হারন মিনহা, কামাল মিনহা, জামাল মিয়া, খায়রুল মিনহা, আলমগীর সিনহা, গোলাপ শেখ, চান্দু মোল্লা, নান্নু মিনহা, উজ্জল মিনহা, ইউনুস সর্দার, বাদশাহ মোল্লা ও এলেম মিয়ার বাড়িসহ অন্তত ৬০টি বাড়ি-ঘরে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মো. মকছেদুল মোমিন জানান, আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় ৪ জনকে ফরিদপুর পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১০৮ রাউন্ড রাবার বুলেট এবং ৬টি টিআর সেল ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত থাকলেও এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

// ২০-০২-২০১৭ //