25 জুন 2017

মাগুরায় জঙ্গি সন্দেহে ৭ জন আটক

খুলনানিউজ.কম:: মাগুরার আড়পাড়া বাজারের একটি বাড়ি থেকে শুক্রবার রাতে জঙ্গি সন্দেহে ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ। বিকাল থেকে বাড়িটি ঘিরে রাখার পর রাত সাড়ে ৮ টার দিকে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে সাথে নিয়ে শালিখা থানা পুলিশ বাড়িটিতে অভিযান চালায়। এ সময়

বাড়ির মালিক এডভোকেট ফরিদ আহমেদসহ ৭ জনকে আটক করা হয়। পুলিশ জানায়, মাগুরার শালিখা উপজেলার আড়পাড়া বাজারে স্থানীয় জামায়াত নেতা এডভোকেট ফরিদ আহমেদের তিনতলা বাড়িটির দ্বিতীয় তলার একটি ফ্লোর ভাড়া নিয়ে অজ্ঞাত পরিচয়ের ৬ ব্যক্তি বৃহস্পতিবার বাক্স পেটরা নিয়ে ওঠে। সেখানে ওঠার পর থেকেই আগন্তুক ব্যক্তিদের চলাফেরা সন্দেহজনক হওয়ায় শালিখা থানা পুলিশ শুক্রবার বিকাল থেকেই বাড়িটি ঘিরে রাখে।

পরে মাগরিবের নামাজের পর ওই বাড়ি থেকে বাড়ির মালিক জামায়াত নেতা ফরিদ আহমেদ এবং জাহাঙ্গীর হোসেন, আনোয়ার হোসেন, জাহিদুল ইসলাম, রবিউল ইসলাম, বাচ্চু, বাশার নামে ৬ জনকে আটক করা হয়। তাদের বাড়ি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার পীরের চর এলাকায়। পুলিশ আগন্তুকদের আটকের পর থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার পাশাপাশি বাড়িটিতে তল্লাশি চালিয়েছে।

পুলিশ রাত ৯টা পর্যন্ত বাড়িটিতে তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ জিহাদি পুস্তক, বাংলাদেশি বিভিন্ন মুদ্রা আকারে কাটা কাগজের ১৪টি বান্ডিল, কিছু ইমিটেশনের গহনা, চার্জার জাতীয় কিছু ইলেকট্রনিক ডিভাইস উদ্ধার করে।

মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তরিকুল ইসলাম জানান, আগন্তুক ব্যক্তিদের অবস্থান ও গতিবিধি সন্দেহজনক হওয়ায় বাড়িটিতে তল্লাশি চালানো হয়। তবে তাদের সঙ্গে জঙ্গিবাদের কোনো সম্পৃক্ততা আছে কিনা সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বাড়িটির মালিক জামায়াত নেতা এডভোকেট ফরিদ আহমেদ একাত্তরের চিহ্নিত রাজাকার শালিখা উপজেলার সাতনাফুরিয়া গ্রামের শের আলীর ছেলে। বিগত সময়ে নাশকতার ঘটনায় একাধিক মামলা রয়েছে ফরিদ আহমেদের বিরুদ্ধে। দেশব্যাপী নাশকতা চলাকালে বাঘারপাড়া থানায় একজন পুলিশ সদস্য নিহত হওয়ার ঘটনায় তার সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

// ০৩-০৬-২০১৭ //