17 জানুয়ারি 2017

পাইকগাছায় কপোতাক্ষের পর অস্তিত্ব সংকটে ঐতিহ্যবাহী শিবসা নদী

150404-river-rtuআব্দুল আজিজ:: খুলনার পাইকগাছায় কপোতাক্ষের পর নাব্যতা হারিয়ে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে ঐতিহ্যবাহী শিবসা নদী। শিববাঢী ব্রীজ থেকে হাড়িয়া চৌমুহনী পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার নদী ভাটার সময় সম্পূর্ন শুকিয়ে যায়। ফলে জোয়ারের সময় কিছুটা স্বাভাবিক

থাকলেও ভাটার সময় পারাপার থেকে শুরু করে বন্ধ হয়ে যায় নৌযান চলাচল। পলি জমে জমে গত কয়েক বছরের মধ্যে এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। নদীটি খননের উদ্দ্যোগ না নিলে, আগামী দু’এক বছরের মধ্যে গোটা পৌরসভাসহ বিস্তীর্ণ এলাকা স্থায়ী জলাবদ্ধতায় রূপ নিবে বলে আশংকা করছে এলাকাবাসী। খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার নদ-নদীগুলোর মধ্যে শিবসা ও কপোতাক্ষ অন্যতম। এ দুটি নদ-নদী উপজেলার প্রাণ। ইতোমধ্যে গত কয়েক বছর আগে ভরাট হয়ে গেছে কপোতাক্ষ।

কপোতাক্ষের পর এবার অস্তিত্ব সংকটে পড়ছে ঐতিহ্যবাহী শিবসা।

এক সময় এ নদী দিয়ে লঞ্চ, স্টিমার, চলাচল করত। মালামাল পরিবহন থেকে শুরু করে যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম ছিল এ নদীটি। মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করত শতশত পরিবার। ঐতিহ্যবাহী নদীটি আজ মৃতু প্রায়। কপোতাক্ষের পথ অনুসরণ করে গত কয়েক বছরে পলি জমে  কপোতাক্ষের শেষ প্রান্ত অর্থ্যাৎ শিববাঢী ব্রীজ থেকে হাড়িয়া চৌমুহনী পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার নদী নাব্যতা হারিয়ে অস্তিত্ব সংকটে পড়ছে।

পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর জানান, নদীটি খনন করা না হলে আগামী দু’এক বছরের মধ্যে পৌরসভাসহ বিস্তীর্ণ এলাকা রূপ নেবে স্থায়ী জলাবদ্ধতায়। ফলে ব্যাপক ফসলহানীসহ দুর্ভোগে পড়বে হাজার হাজার মানুষ।

উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ স.ম. বাবর আলী বলেন, উপজেলার সকল নদ-নদীর প্রাণ হচ্ছে শিবসা নদী। এলাকার পানি নিস্কাশন থেকে শুরু করে যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম এ নদীটি।

এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে এবং মানুষের জীবন যাত্রার মান স্বাভাবিক রাখতে নদীটি খনন জরুরী হয়ে পড়েছে। নদীটি খননের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ এবং এ সংক্রান্ত বিষয়ে মহান জাতীয় সংসদে উত্থাপন করা হয়েছে বলে স্থানীয় এমপি এ্যাডঃ শেখ মোঃ নূরুল হক জানান। অনতিবিলম্বে নদীটি খননের উদ্যোগ গ্রহণ করা হোক এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

// পাইকগাছা, খুলনা: ০৪-০৪-২০১৫ //