17 জানুয়ারি 2017

মুক্তিযুদ্ধে নিহত ১,৯৮৪ ভারতীয় সৈন্যকে সম্মানিত করবেন হাসিনা

150603-hasinaখুলনানিউজ.কম:: মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের স্বাধীনতার লড়াইয়ে মুক্তি বাহিনীর হয়ে লড়াই করেছিলেন ভারতীয় সেনারা ৷ ১০ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১-এ বাংলাদেশ পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়লাভ করে ৷

একাত্তরের সেই মুক্তিযুদ্ধে কয়েক লাখ মুক্তিযোদ্ধার পাশাপাশি নিহত হয়েছিলেন ১ হাজার ৯৮৪ জন ভারতীয় সেনা বাহিনীর জওয়ান ৷

বাংলাদেশের স্বাধীনতার এই আন্দোলনে বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করেছিলেন বেশ কয়েকটি দেশের বিশিষ্ট নাগরিকেরা ৷বিশিষ্টরা সম্মানিত হলেও যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার লড়াইয়ে রক্ত ঝরিয়ে ছিলেন, প্রাণ দিয়েছিলেন, বিভিন্ন কারণে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সেই সদস্যদের সম্মানিত করে উঠতে পারেনি বাংলাদেশ ৷

এবার তাই সেই সব ভারতীয় সেনা, যারা নিজেদের জীবনের বিনিময়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের আন্দোলনকে সফল করেছিলেন, তাদের সম্মানিত করতে উদ্যোগ নিচ্ছে বাংলাদেশ ৷

সম্প্রতি ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীকে মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য সম্মান জানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৷ বলেন, ভারতীয় সেনা বাহিনীর সেই সব জওয়ানকে ভোলা সম্ভব নয়, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার লড়াইয়ে নিজেদের প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন ৷

এর পরই সেদেশে মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নিয়েছে, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে নিহত ১ হাজার ৯৮৪ জন ভারতীয় সেনা জওয়ানকে সম্মান জানানো হবে বাংলাদেশ সরকারের তরফে ৷

৭ জুন ঢাকায় ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর হয়ে হাসিনার হাত থেকে সম্মান গ্রহণ করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷ সেই সময়ই নরেন্দ্র মোদিকে নিহত ভারতীয় সেনা জওয়ানদের সম্মান জানানোর বিষয়ে বলবেন শেখ হাসিনা ৷

মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্রে খবর, নিহত ওই সেনা জওয়ানদের পরিবারের সদস্যরা ৪৪ বছর পর এখন ভারতের কোথায় থাকেন, তা জানা তাদের পক্ষে সম্ভব নয় ৷ তাদের একত্রিত করা বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে আরও কঠিন ৷ তাই সাহায্য নেওয়া হবে ভারতীয় সেনা বাহিনীর ৷ ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে হাসিনা বলবেন সেই কথা ৷ ভারত সরকারের সম্মতি থাকলে দিল্লিতে হতে পারে সেই সম্মান প্রদান অনুষ্ঠান ৷

ভারতীয় সেনা বাহিনীর সহায়তায় ১ হাজার ৯৮৪ জন নিহত জওয়ানের পরিবারের সদস্যদের একত্রিত করা হবে ৷

ঠিক হয়েছে ওই নিহত সেনাদের প্রত্যেকের পরিবারকে দেওয়া হবে একটি প্রশংসাপত্র, স্মারক এবং কিছু উপহার ৷

তাদের জন্যও কিছু করা যায় কি না, তা নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করছে বাংলাদেশ সরকার ৷ দিল্লিতে সেই সম্মান-অনুষ্ঠানে নিহত সেনাদের পরিবারের সদস্যদের সম্মানিত করার ইচ্ছে রয়েছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৷– ওয়েবসাইট।

// ০৩-০৬-২০১৫ //