28 মার্চ 2017

আজ মাগুরায় যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

খুলনানিউজ.কম:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ মঙ্গলবার মাগুরায় যাচ্ছেন। সেখানে তিনি ৩০৮ কোটি ৫৩ লাখ টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করার পাশাপাশি ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন ১৭৭ কোটি ১১ লাখ টাকার ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের। ইতোমধ্যে ১৩১ কোটি ৮২ লাখ টাকার ১৫টি

উন্নয়ন কাজ শেষ হয়েছে। এসব প্রকল্প উদ্বোধন ছাড়াও বিকেল ৩টায় তিনি মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ মঙ্গলবার মাগুরায় যাচ্ছেন। সেখানে তিনি ৩০৮ কোটি ৫৩ লাখ টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করার পাশাপাশি ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন ১৭৭ কোটি ১১ লাখ টাকার ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের। ইতোমধ্যে ১৩১ কোটি ৮২ লাখ টাকার ১৫টি উন্নয়ন কাজ শেষ হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব মামুন-অর-রশীদ বাসসকে জানান, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মাগুরা হাসপাতাল, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান স্টেডিয়ামসহ প্রায় ৩শ’ ১০ কোটি টাকার ১৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ৯টি নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর বিকেল ৩টায় তিনি মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে মাগুড়া সেজেছে নতুন রূপে। এছাড়া জনসভাস্থলসহ পুরো জেলায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকেও সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীর সফর সফল করতে জেলা প্রশাসনও কাজ করে চলেছে।

২৬ কোটি ৫৯ টাকা ব্যয়ে নির্মিত মাগুরা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত মুক্তিযোদ্ধ কমপ্লেক্স ভবন, ৩০ কোটি ৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতাল, ৩ কোটি ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত শ্রীপুর উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, ১ কোটি ৭১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত মহাম্মপুর উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, ৫ কোটি ৩৮ লাখ ব্যয়ে নির্মিত সদর উপজেলার মঘি ইউপি অফিস থেকে আন্দোলবাড়িয়া সড়কে ফটকি নদীর উপর ১০০.১০ মিটার ব্রিজ নির্মাণ, ৭ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সদর উপজেলার কাটাখালী জিসি-ইছাখাদা আর অ্যান্ড এইচ পর্যন্ত প্রায় ৯.৭১ কিলোমিটার সড়ক, ৪ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৩০.৫০ মিটার নতুন বাজার সেতু, ৮ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৫০ ঘনমিটার প্রতিঘণ্টা ক্ষমতা সম্পন্ন ভূগর্ভস্থ পানি শোধনাগার, ১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সরকারি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের প্রশাসনিক ভবন, ৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সদর উপজেলার বেলনগর এলাকায় হেচারিসহ আঞ্চলিক হাঁস প্রজনন খামার (তৃতীয় পর্যায়), ১ কোটি ৫ লাখ টাকা ব্যয়ে আঞ্চলিক মসলা গবেষণা কেন্দ্রের জন্য আধুনিক প্রশিক্ষণ ভবন ও অতিথিশালা, ৮ কোটি ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজ সম্পন্ন হওয়া ৫০ শয্যার শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবন, ৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে শালিখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, আড়পাড়া ৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র, ৯ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে মাগুরা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা মাগুরা টেক্সটাইল মিল এবং জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী ১৭৭ কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয়ের মোট ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন। যেগুলো হচ্ছে ৯১ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ব্যয়ে জাতীয় মহাসড়কের (এন-৭) মাগুরা শহর অংশ ৪ লেনে উন্নীতকরণ, ৪ কোটি ৫২ লাখ টাকা ব্যয়ে মাগুরা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস ভবন, ৩ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ব্যয়ে শালিখা উপজেলাধীন বুনাগাতি হতে বৈরইল পলিতা সড়কে নালিয়া ঘাটে  ফটকি নদীর উপর ৯৬ মিটার ব্রিজ নির্মাণ, ৪ কোটি ৬২ লাখ টাকা ব্যয়ে শালিখা উপজেলাধীন বরইচারা আটিরভিটা-বরইচারা বাজার সড়কে ফটকি নদীর উপর ৬৬ মিটার ব্রীজ নির্মাণ, ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে শালিখা উপজেলার বাউলিয়া-শরশুনা সড়কে চিত্রা নদীর উপর ৯৬ মিটার ব্রিজ নির্মাণ, ২৫ কোটি ৫৮ লাখ টাকা ব্যয়ে মাগুরা পৌরসভার তৃতীয় নগর পরিচালনা ও অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প (২য় পর্যায়), ৪১ লাখ টাকা ব্যয়ে শ্রীপুর উপজেলা মিনি স্টেডিয়াম এবং ৪১ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজ শুরু হতে যাওয়া শালিখা উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম এবং অর্থ অনুল্লিখিত মাগুরা-ঝিনাইদহ মহাসড়কের পাশে পাঁচ একর জায়গায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং ও ইনকিইবেশন সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন।

মাগুরা জেলা প্রশাসক মুহ. মাহবুবর রহমান জানান, এরইমধ্যে ২৪টি উন্নয়ন প্রকল্পের ফলক স্থাপন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সফর সফল করতে সব ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক। এদিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলন উন্মোচন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের কাজ শেষে প্রধানমন্ত্রী বিকেল ৩টায় মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ কুণ্ডু বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে মাগুরাবাসী উন্মুখ করে দেয়া। জেলার পুলিশ সুপার মো. মুনিবুর রহমান বলেন, পুলিশের নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থার পাশাপাশি সরকারের সকল গোয়েন্দা সংস্থা ও বিশেষ বাহিনীর সাথে আমাদের সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রয়েছে। মাগুরার পাশাপাশি বিভিন্ন জেলা থেকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। প্রত্যেকটি বাহিনীর সঙ্গে তথ্যের আদান-প্রদানের মাধ্যমে নিজেদের সার্বক্ষণিক আপডেট রাখা হচ্ছে।

// ২১-০৩-২০১৭ //