29 মে 2017

ভিন্ন গ্রহের প্রাণীরা পৃথিবীতে আসেনি

খুলনানিউজ.কম:: মাত্র যে ১২ জনের সৌভাগ্য হয়েছে পৃথিবীর বাইরে অন্য মাটিতে পা রাখার, তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন অ্যালন বিন নিলস। ১৯৬৯ সালে অ্যাপোলো ১১-য় সওয়ার হয়ে নিল আর্মস্ট্রং এবং বাজ অল্ড্রিন প্রথম পা রাখেন চাঁদের মাটিতে। এর চার মাস পরেই অ্যাপোলো

১২ পাড়ি দেয় মহাকাশে। মহাকাশচারী পিট কনরাড এবং অ্যালান বিন তার সওয়ার হিসেবে চাঁদে পৌঁছন। ১৯৭৩-এ তিনি দ্বিতীয় স্কাইল্যাব মিশনের কম্যান্ডার হিসেবে ৫৯ দিন মহাকাশে কাটিয়ে আসেন। ১৯৭৫-এ রুশ-মার্কিন যৌথ ভয়েজ অ্যাপোলো-সয়ুজ-এও তিনি ব্যাক আপ কম্যান্ডার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এখন অ্যালানের বয়স ৮৫। নাসা থেকে অবসর নিয়েছেন ১৯৮১ সালে। এখন ছবি আঁকাই তার সব সময়ের কাজ। তার দীর্ঘ মহাকাশ অভিজ্ঞতা থেকে তিনি এক চিরায়ত প্রশ্নের উত্তর দিলেন সম্প্রতি।

অস্ট্রেলিয়ার এক সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অ্যালান জানিয়েছেন— তিনি মনে করেন না, ভিন্ন গ্রহ থেকে কেউ কখনও পৃথিবী পা রেখেছে।

তার মতে, মানব সভ্যতার সমতুল কোনও সভ্যতা অন্য কোথাও থাকা সম্ভব নয়। মানব সভ্যতা অত্যন্ত বন্ধুভাবাপন্ন। যদি ভিন গ্রহ থেকে কেউ কখনও এসে থাকত, সে মানব সমাজ থেকে মুখ লুকিয়ে থাকত না।

সেই সঙ্গে অ্যালান এ-ও জানান, ভিন গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব সম তিনি অবিশ্বাসী নন। মহাজগতে কোটি কোটি নক্ষত্রলোকের অগণিত গ্রহ-উপগ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব থাকতেই পারে। কিন্তু সেখান থেকে কেউ কখনও পৃথিবীতে আসেনি।

ভিন গ্রহের জীবরা পৃথিবীতে এলে তারা মানুষের বেশ কিছু কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করত। কারণ, তাদের সভ্যতা মানুষের চাইতে অবশ্যম্ভাবী ভাবে উন্নত। না হলে তারা মানুষের আগে মহাকাশ পাড়ি দিতে পারে না। তেমন কিছুই তো ইতিহাসে ঘটেনি।

২০০৯ সালে অ্যাপোলো ১৪-র মহাকাশচারী এডগার মিচেল ইউএফও-সংক্রান্ত এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছিলেন, ভিনগ্রহীরা পৃথিবী ভ্রমণ করে থাকতে পারে। ২০১৬-এ প্রয়াত হয়েছেন। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েই অ্যালান বলেছেন, একজন মহাকাশচারী মত প্রকাশ করলেই তাকে সত্যি হিসেবে ধারে নিতে হবে, এর কোনও বাধকতা রয়েছে কি?

সূত্র : এবেলা

// ০৩-০৪-২০১৭ //