23 জুন 2017

আ.লীগের ফেসবুক প্রশিক্ষণে যুক্ত হচ্ছে তৃণমূল

খুলনানিউজ.কম:: সংসদ সদস্যদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আরও কার্যকরভাবে ব্যবহারে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন সজীব ওয়াজেদ জয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড বেশি বেশি তুলে ধরতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাদের ফেসবুক,

টুইটার, ইউটিউব চালনাসহ আইটি প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এবার তৃণমূলকে যুক্ত করা হবে। ইতিমধ্যে ঢাকায় প্রথম পর‌্যায়ে সংসদ সদস্যদের জন্য আয়োজিত তিন দিনের কর্মশালায় প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ১৩৭ জন সংসদ সদস্য। প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নেওয়া সংসদ সদস্যরা জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি, ভিডিও প্রচার করার পাশাপাশি সরকারের আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ডের তথ্য কীভাবে তুলে ধরতে হবে, সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে তাদের।

এ ছাড়া অপেক্ষাকৃত প্রবীণ সংসদ সদস্য, যারা অনলাইনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করতে পারেন না, তাদের সহযোগী নিয়োগ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

রবিবার (৭ মে) শুরু হওয়া তিন দিনের কর্মশালা শেষ হয়েছে মঙ্গলবার। পরিচালনা করেন আওয়ামী লীগের গবেষণা উইং সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) অ্যাসিসটেন্ট কো-অর্ডিনেটর তন্ময় আহমেদ ও সিনিয়র এনালিস্ট ব্যারিস্টার শাহ আলী ফরহাদ। এই প্রশিক্ষণ কর্মশালায় সহযোগিতা করেছে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটি।

সংসদ সদস্যদের নিজ এলাকায় বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার আগে সিআরআইকে কর্মসূচির বিষয়ে অবহিত করার আহ্বান জানানো হয়েছে। সংসদ সদস্য ও তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাদের স্থানীয় পর্যায়ের কর্মসূচির বিষয়গুলো কেন্দ্রীয়ভাবে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানা গেছে, প্রথম ধাপের কর্মশালায় ১৩৭ জন সংসদ সদস্য অংশ নেন। তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল এতে ১৫০ জনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

কর্মশালায় অংশ নেয়া কয়েকজন সাংসদ জানান, তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে কীভাবে ফেসবুক, টুইটার, গুগল প্লাস, ইউটিউব ইত্যাদি ব্যবহার করে ডিজিটাল ব্যবস্থাপনায় নতুন অ্যাকাউন্ট খোলা যায়, কনটেন্ট তৈরি করে দৈনন্দিন ব্যবস্থাপনার  মাধ্যমে কীভাবে জনগণের সাথে কার্যকরী দ্বিমুখী যোগাযোগ গড়ে তোলা যায়। এ ছাড়া অনলাইনে কীভাবে উপস্থিতি নিশ্চিত করা যায়, অ্যাকাউন্ট ভেরিফাইড করা যায়, অনলাইনে নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ অন্যান্য বিষয়েও প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

কর্মশালার উদ্বোধন করেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। কর্মশালায় অতিথি হিসেবে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।  তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদ পলক কর্মশালায় বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন।

প্রশিক্ষণ কর্মশালার প্রথম দিনে অংশগ্রহণকারীদের উদ্দেশে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ‘ফেসবুকে প্রতিদিন কমপক্ষে একটা করে পোস্ট আপনারা দিন। প্রয়োজনে দুইটা, তিনটা করে পোস্ট দিতে পারেন। অথবা আমরা যেগুলো পোস্ট দিব সেটা শেয়ার করবেন।’ তিনি বলেন, ‘আপনাদের ফেসবুক পেজ বা অ্যাকাউন্ট ভেরিফাইড করার বিষয়ে আমরা সহযোগিতা করব।’

জানা গেছে, সংসদ সদস্যদের পর আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাদের এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করবে সিআরআই। আগামী ২১ ও ২২ মে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে এ সংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলবেন সিআরআইয়ের কর্মকর্তারা।

এ ছাড়া প্রতিটি জেলা আওয়ামী লীগের অফিসে অত্যাধুনিক কম্পিউটার ও একজন করে বিশেষঞ্জের মাধ্যমে স্থানীয় নেতাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড প্রচারের ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা করেছে দলটি।

সিআরআইয়ের সূত্রে জানা গেছে, সংসদ সদস্যদের সঙ্গে গবেষণা উইং সিআরআইয়ের একটা সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন হয়েছে এই প্রশিক্ষণ কর্মশালার মাধ্যমে। সরকারের বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের একটা প্রেজেন্টেশনের সফট ও হার্ড কপি সরবরাহ করা হয়েছে সংসদ সদস্যদের। পাশাপাশি সংসদ সদস্যদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারের ক্ষেত্রে সিআরআই কারিগরি সহযোগিতা প্রদান করতে পারে বলে সংসদ সদস্যদের জানানো হয়েছে।

সহকারী সমন্বয়ক প্রকৌশলী তন্ময় আহমেদ বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দলীয় সংসদ সদস্যরা কীভাবে তাদের কাজগুলো প্রচার করতে পারেন, কোন কোন বিষয়গুলো তারা প্রচার করবেন, সেগুলো নিয়ে কাজ করছে সিআরআই।

প্রশিক্ষণের প্রথম দিন অংশ নেয়া নোয়াখালী-৬ আসনের সংসদ সদস্য আয়েশা ফেরদাউস ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘প্রশিক্ষণে আমাদের সরকারের উন্নয়নের চিত্র সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আমরা সেই অনুযায়ী কাজ করব।

সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী বলেন, তৃণমূল মানুষের জন্য উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথাগুলো তৃণমূল মানুষের কাছে তুলে ধরাই এই কর্মশালার মূল লক্ষ্য। ডিজিটাল বাংলাদেশ আমরা সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারের নারীদের অংশগ্রহণ পুরুষদের চেয়ে কম। সে ব্যাপারে নারীদের সচেতন করা।

কর্মশালার শেষ দিন অংশ নেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ, তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার এটা সবার জন্য জরুরি। বিশেষ করে যারা জনপ্রতিনিধি তারা তথ্যপ্রযুক্তি ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে ভোটারদের কাছে আমাদের কথা পৌঁছাতে পারি। কোথাও কোনো বিভ্রান্তির সৃষ্টি হলে সেটা দূর করতে কাজ করতে পারি। সেই সুযোগটা জনপ্রতিনিধিরা কাজে লাগাতে পারেন।

// ১০-০৫-২০১৭ //