খুলনায় করোনা রোগী কমছে, বাড়ছে স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতা

এ এইচ হিমালয় : খুলনায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর শনাক্ত হার কমে যাচ্ছে। গত ৪ দিনে খুলনায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিলো যথাক্রমে ৮, ৮, ৭ ও ১২ জন। বর্তমানে করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ২৪জন রোগী। আক্রান্তের সূচক কমার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলার প্রবণতা। রাস্তা, বাজার, ঘাট, মার্কেট বিপণী বিতান, এমনকি অনেক সরকারি অফিসে স্বাস্থ্যবিধি বা মাস্ক ব্যবহার দেয়ালের নোটিশে সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে।
ফলে আসছে শীতে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় প্রকোপ বা দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে-উদ্বিগ্ন বিশিষ্টজনেরা। গত রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ঠেকাতে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু জনগণের মাঝে এ নিয়ে তেমন কোনো মাথা ব্যথা নেই। স্বাস্থ্য প্রশাসনেও বাড়তি প্রস্তুতি নেই বললেই চলে।
খুলনা বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) এর পরিসংখ্যান শাখা থেকে জানা গেছে, খুলনায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় চলতি বছরের ১৩ এপ্রিল। এরপর সাড়ে ৫ মাসে ( বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত) খুলনা জেলায় ৬ হাজার ২৮৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৬৬৩ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। মারা গেছেন ৯৪ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৫ হাজার ৮৫১ জন।
সূত্রটি জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৮ জন রোগীর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে ২৪ জন রোগী হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এর আগে ২৩ সেপ্টেম্বর ৮ জন, ২২ সেপ্টেম্বর ৭ জন, ২১ সেপ্টেম্বর ১২ জন এবং ২০ সেপ্টেম্বর ২০ জন রোগী আক্রান্ত হয়েছিলেন। অথচ খুলনায় একদিনে সর্বোচ্চ প্রায় দেড়শ’ রোগী শনাক্ত হয়েছিল।
এদিকে রোগী কমার স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতা বাড়ছে। জীবন ও জীবিকার তাগিদে সরকার লকডাউন তুলে দেওয়ার পর থেকেই এই প্রবণতা শুরু হয়। দিনে দিনে যা’ বাড়ছে।
সম্প্রতি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কে আগের মতোই যানজট, মানুষের জটলা তৈরি হচ্ছে। সড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ইঞ্জিন রিকশা। চালক, যাত্রী কারও মুখেই মাস্ক নেই। নগরীর বাজারগুলোতে নেই সামাজিক দূরত্বের বালাই। দোকানে দোকানে ভিড় করছেন মানুষ।
গত বুধবার রাতে সন্ধ্যা বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, মাছ ও সবজি দোকানের সামনে ক্রেতাদের ভিড়। বাজারে সামনে লেখা রয়েছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পণ্য কিনুন। দোকানের সামনে গোল চিহ্ন দেওয়া রয়েছে। কিন্তু ক্রেতাদের কেউই তা’ মানছেন না। তারা পাশাপাশি অনেকে প্রায় গা-ঘেঁষে দাঁড়িয়ে আছেন। দোকানে থাকা কর্মচারি মুখে কোন মাস্ক নেই। পুরুষ ক্রেতাদের ৮০ ভাগ ছিলেন মাস্ক ছাড়া। বাজারের প্রায় সব দোকানেই একই চিত্র। বাজারের চিত্র দেখে বুঝা মুশকিল যে দেশে করোনাভাইরাস নামে ভয়াবহ কোন সংক্রমণ ব্যাধি আছে। নগরীর প্রায় সব মার্কেট এবং জনবহুল স্থানের পরিবেশ এমনই।
এ ব্যাপারে খুলনার সিভিল সার্জন ডাঃ সুজাত আহমেদ বলেন, শীতকালে করোনার দ্বিতীয় দফা প্রকোপ নিয়ে আমরা সতর্ক রয়েছি। আমাদের চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মীরা বিরামহীন কাজ করছে। ভবিষ্যতে যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুত রয়েছি।
খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং মাস্ক ব্যবহার বাড়াতে মোবাইল কোর্ট চলছে। সম্প্রতি এই অভিযান বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এডিটর-ইন-চিফ : মাহমুদ হাসান সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : আবু বকর সিদ্দিক সাগর
নিউজরুম মেইল: khulnanews24@gmail.com এডিটর-ইন-চিফ ইমেইল : editor@khulnanews.com
Khulna Office : Chamber Mansion (3rd Floor), 5 KDA Commercial Area, Jessore Road, Khulna 9100,
Dhaka Office : 102 Kakrail (1st Floor), Dhaka-1000, Bangladesh.
কপিরাইট © 2009-2020 KhulnaNews.com |