হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে অভিনব কায়দায় মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

আঙ্গুলের ছাপ শনাক্ত করার সর্বাধুনিক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে হোয়াটস অ্যাপ মেসেজের ছবি থেকে অপরাধী শনাক্ত করার পদ্ধতি ভবিষ্যতে শিগগিরই ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা শুরু হবে। যুক্তরাজ্যের পুলিশ এখনই অপরাধী ধরতে এই পদ্ধতি ব্যবহার করছে।

যুক্তরাজ্যের ওয়েলসের ব্রিজেন্ড শহরে গ্রেফতারকৃত একজন ব্যক্তির মোবাইলে মাদক ‘এক্সটাসি ট্যাবলেট’ হাতে ধরে আছে এমন একটি ছবি পায় পুলিশ।

সাউথ ওয়েলস পুলিশের প্রযুক্তি কর্মকর্তাদের সহায়তায় কর্তৃপক্ষ ওই ছবি থেকে ১১টি অভিযোগ প্রমাণে সক্ষম হয়েছে।

ওয়েলসে ছবি থেকে ফিঙ্গারপ্রিন্ট বা আঙ্গুলের ছাপ শনাক্ত করে অপরাধ প্রমাণের ঘটনা এটিই প্রথম বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পুলিশ সদস্য ডেভ থমাস এই ঘটনাকে ‘যুগান্তকারী’ বলে অভিহিত করে বলেন, পুলিশ অফিসারেরা এখন অপরাধের প্রমাণ পেতে গ্রেফতারকৃতদের ফোনের ছবি খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পরীক্ষা করছেন।

থমাস বলেন, ‘আঙ্গুলের ছাপ খোঁজা পুরনো পদ্ধতি। মূলত আমরা একটি ফোন নিয়ে এটিতে সংরক্ষিত সব কিছু দেখি। আমরা জানতাম এতে মাদক হাতে ধরে আছে এমন ছবি পাওয়া যাবে। মাদক ব্যবসায়ীরা ধরা পড়া এড়াতে প্রযুক্তি ব্যবহার করছে, আমাদেরও তাদের সাথে তাল মেলাতে হয়।’

অপরাধীর মোবাইলে হোয়াটস অ্যাপ মেসেজ ঘেটে কয়েক মাস পুরনো একটি ছবি খুঁজে বের করায় একজন কর্মচারীর প্রশংসা করেন থমাস। ওই ছবি অভিযোগ প্রমাণের জন্য যথেষ্ট ছিল।

তিনি বলেন, ‘মেসজের টেক্সটে লেখা ছিল, ‘তুমি কী কিনতে চাও?’ এর নিচে একটি ছবি ছিল যাতে হাতের তালুতে কয়েকটি মাদক ধরে রাখতে দেখা যাচ্ছে। ওই ছবি সম্ভাব্য ক্রেতাদের কাছে পাঠাতো মাদক ব্যবসায়িরা।

ওই লোক বুঝতে পারেনি ছবিতে ওর হাতের অংশ বিশেষ দেখা যাচ্ছে যা আঙ্গুলের ছাপ শনাক্ত করতে ব্যবহার করা হতে পারে,’ যোগ করেন তিনি।

ব্রিজেন্ডের পুলিশ ছবি স্ক্যান করে সেটা থেকে আঙ্গুলের ছাপ সংগ্রহ করতে সমর্থ হয়। এরপর তারা তাদের ডাটাবেস ব্যবহার করে ওই আঙ্গুলের মালিককে খুঁজে বের করার চেষ্টা করেন। কিন্তু ডাটাবেসে আঙ্গুলের মাথার ছবি থাকে, হোয়াটস অ্যাপের ছবিতে শুধু হাতের আঙ্গুলের মধ্যম ও নিচের অংশের ছবি রয়েছে।

কিন্তু ওই মাদক ব্যবসায়ী কে সেটা অন্যান্য আলামত থেকে পুলিশ অনুমান করে তাকে গ্রেফতার করে এবং পরে হোয়াটসঅ্যাপের ছবি থেকে পাওয়া আঙ্গুলের ছাপের সাথে ওই ব্যক্তির আঙ্গুলের ছাপের মিল পাওয়ায় তার অপরাধ প্রমাণে সক্ষম হয়।

ছবিতে অপরাধীর আঙ্গুলের সামান্য একটু অংশের ছবি থাকলেও সেই যে ওই মাদক হাতে নিয়েছিল, এটা প্রমাণ করার জন্য জন্য তা যথেষ্ট ছিল।

থমাস বলেন, ৮০% মানুষের কাছে এখন মোবাইল ফোন আছে এবং তারা মারামারি ও গাড়ি দুর্ঘটনার মতো বিভিন্ন বিষয় রেকর্ড করে রাখেন। এসব দিয়ে ভবিষ্যতে অপরাধের প্রমাণ হাজির করা ও অপরাধীকে গ্রেফতারের প্রক্রিয়াই বদলে দেয়া যাবে।

এডিটর-ইন-চিফ : মাহমুদ হাসান সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : আবু বকর সিদ্দিক সাগর
নিউজরুম মেইল: khulnanews24@gmail.com এডিটর ইমেইল : editor@khulnanews.com
Khulna Office : Chamber Mansion (5th Floor), 5 KDA C/A, Jessore Road, Khulna 9100,
Dhaka Office : 102 Kakrail (1st Floor), Dhaka-1000, Bangladesh.
কপিরাইট © 2009-2020 KhulnaNews.com